আ’লীগের কাছে ১০০ আসন চাইবে জাপা

28

আওয়ামী লীগের সঙ্গে নির্বাচনী জোট হলে জাতীয় পার্টি দলটির কাছে ১০০ আসন চাইবে বলে জানিয়েছেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঢাকা-৪ আসনের সংসদ সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা। তিনি বলেন, আমরা ৩০০ আসনের প্রস্তুতি নিয়ে সম্মিলিত জাতীয় জোট-ইউএনএ গঠন করেছি। ৩০০ আসনের প্রার্থী দেওয়ার জন্য সারাদেশে আমরা প্রার্থীও চূড়ান্ত করছি। তবে পরিবর্তিত প্রেক্ষাপটে বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলে আওয়ামী লীগের কাছে এবার আমরা ১০০ আসন চাইবো। কেননা, জাতীয় পার্টি এখন আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বাইরে জোটের রাজনীতি করে এখনও কেউ সফল হয়নি, তারপরও আপনারা এবার জোট করেছেন। সফলতার সম্ভাবনা কতটুকু জানতে চাইলে বাবলা বলেন, ‘কেউ সফল হয়নি বলে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সফল হবেন না এমন কথা ঠিক নয়। রাজনৈতিক কৌশলে ঠিকই হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ জয়ী হবেন। এরশাদ এদেশের উন্নয়নের রূপকার। আধুনিক বাংলাদেশের স্থপতি। যদি বিএনপি নির্বাচনে না আসে ও সুষ্ঠু নির্বাচন হয় জাতীয় পার্টির নেতৃত্বাধীন জোট ক্ষমতায় আসবে।’

জাতীয় পার্টি সরকারের মন্ত্রীসভাতে আবার বিরোধীদলেও। পার্টির চেয়ারম্যানও মন্ত্রীদের সরকার থেকে পদত্যাগ করতে বলেছেন। এ নিয়ে জনগণের মধ্যে নেতিবাচক ধারণা সৃষ্টি করছে কি না জানতে চাইলে বাবলা বলেন, ‘বিশ্বের অনেক দেশেই বিরোধীদল সরকারে থাকে। নেতিবাচক ধারণা আংশিক রয়েছে। তবে তা ঠিক হয়ে যাবে। কৌশলগত কারণে আমরা সরকারে রয়েছি। কৌশলগত কারণে আমাদের চেয়ারম্যান বলেছেন। তবে সময়মত ঠিকই আমরা সরকার থেকে বেরিয়ে আসবো।’

জাতীয় পার্টি বর্তমান সাংগঠনিক অবস্থায় ৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে পারবে কি না জানতে চাইলে বাবলা বলেন, ‘৭০ থেকে ৭৫ ভাগ আসনে আমাদের প্রার্থী চূড়ান্ত। ঈদের পর সারাদেশের বিভাগীয় শহরে আমরা জোটগতভাবে মহাসমাবেশ করবো। তারপর বাকি আসনগুলোর প্রার্থীও চূড়ান্ত করে ফেলবো। এ বছরই শতভাগ আসনে আমাদের প্রার্থী চূড়ান্ত হবে।’

চালের দামবৃদ্ধি সরকারকে আগামী নির্বাচনে বেকায়দায় ফেলবে কিনা জানতে চাইলে বাবলা বলেন, ‘চালের দামবৃদ্ধি দুঃখজনক। তবে এই সঙ্কট সাময়িক। এই সঙ্কট ঈদের পর ৩০ দিনের মধ্যে কেটে যাবে ইনশাআল্লাহ।’