উদ্বোধনী সাদামাটা সমাপনী জমকালো

22

দীর্ঘ ৩২ বছর পর ঢাকায় এশিয়া কাপ হকি। দেশের মাটিতে এমন গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্টের আয়োজন স্মরণীয় করে রাখতে গলদঘর্ম ফেডারেশন কর্মকর্তাদের। ১১ই অক্টোবর শুরু হবে এই টুর্নামেন্ট। এরই মধ্যে তৈরি করা হয়েছে প্রমো ও থিম সং। নিত্যদিন টুর্নামেন্টের নানা দিক নিয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করছেন আয়োজকরা। গতকাল সেরকমই এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হলো এশিয়া কাপ হকির উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে সাদামাটা। তবে সমাপনী দিনে আকর্ষণীয় অনুষ্ঠানের পাশাপাশি চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দলের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
এদিকে সাবেক তারকাদের ম্যাচের মধ্যদিয়ে গতকাল সন্ধ্যায় আনুষ্ঠানিকভাবে জ্বালানো হয়েছে ফ্লাডলাইট। বাকি কেবল ইলেক্ট্রনিক বোর্ড। এ বিষয়ে টুর্নামেন্ট কমিটির সম্পাদক ও ফেডারেশনের নির্বাহী সদস্য আ ন ম মামুনুর রশিদ বলেন, ‘এশিয়া কাপ আয়োজনের প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন। ইলেকট্রনিক স্কোরবোর্ড এসে পড়েছে ইতিমধ্যে। দু-একদিনের মধ্যেই সংস্থাপন হবে। এশিয়ান হকি ফেডারেশনের কর্মকর্তারা আসবেন ৬ই অক্টোবর। দলগুলো ৮ই অক্টোবরের মধ্যে চলে আসবে।’
হোটেল সোনারগাঁয় জাপান, পূর্বাণীতে বাংলাদেশ, কোরিয়া ও চীন এবং হোটেল ফারসে থাকবেন ভারত, পাকিস্তান, মালয়েশিয়া ও ওমানের খেলোয়াড়রা।
উদ্বোধন ও সমাপনী অনুষ্ঠান নিয়ে সাংগঠনিক কমিটির চেয়ারম্যান শফিউল্লাহ আল মুনির বলেন, ‘উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সাদামাটা হবে। শুধু বেলুন উড়িয়ে আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করব। এশিয়ান হকি ফেডারেশনের নির্দেশনা মেনেই আমরা এই পরিকল্পনা করেছি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল। তবে আমরা সমাপনী অনুুষ্ঠান জাঁকজমকভাবে করার চেষ্টা করছি। ৪০ থেকে ৪৫ মিনিট ব্যাপী হবে সমাপনী অনুষ্ঠান। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী থাকবেন প্রধান অতিথি হিসেবে।’
টুর্নামেন্ট চলাকালে ক্লাব হাউজের দুই পাশে স্যুভেনুর কেনার সুযোগ থাকবে দর্শকদের জন্য। এশিয়া কাপ হকি কাভারের জন্য ইতিমধ্যে বাংলাদেশের শতাধিক ও আন্তর্জাতিক মিডিয়া থেকে ৩০ জন সাংবাদিক অ্যাক্রিডিটেশনের জন্য আবেদন করেছে। সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সাদেক, সহ-সভাপতি আবদুর রশিদ শিকদার ও খাজা রহমতউল্লাহ, ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা শাজাহান বসুনিয়া।