কাতালান গণভোট: পুলিশের বাঁধার মুখেই ভোটগ্রহণ শুরু

33

বিশৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার প্রশ্নে গণভোট, ভোট ঠেকানোর চেষ্টা করছে পুলিশ। স্প্যানিশ সাংবিধানিক আদালতের অবৈধ ঘোষণা করা এই গণভোট থামানোর অঙ্গিকার করেছে সরকার। সম্ভাব্য ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে প্রবেশে বাঁধা দেয়ার চেষ্টা করছে পুলিশ এবং বেশ কিছু ব্যালট পেপার এবং ভোটবক্সও জব্দ করেছে তারা। তারপরও কাতালোনিয়ার সরকারী কর্মকর্তারা বড় ভোটার সমাগম হবে বলে ধারণা করছেন। জিওরনা শহরে কাতালান নেতা কার্লেস পুজদেমন যে ভোটকেন্দ্রে ভোট দেয়ার কথা সেখানে জোর করে ঢুকে পড়েছে দাঙ্গা পুলিশ। টেলিভিশনের ছবিতে দেখা গেছে স্পোর্টস সেন্টারের কাঁচ এবং সদর দরজা ভেঙ্গে ঢুকে পড়ছে পুলিশ। যারা ভোট দিতে আসছেন তাদের বলপ্রয়োগ করে সরিয়ে দেয়া হচ্ছে। যদিও সংবাদ সংস্থা রয়টার্স বলছে, মি. পুজদেমন্ট তার ভোট দিতে পেরেছেন। ভোট শুরুর আগেই গভীর রাত থেকে ভোটকেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত স্কুলগুলার ভেতরে অবস্থান নিয়ে ছিলেন বিচ্ছিন্নতার সমর্থকরা। তাদের মধ্যে অনেকেই ছিলেন স্কুলের শিক্ষার্থী এবং তাদের মা-বাবা। স্কুল ছুটির পর তারা তাঁবু খাটিয়ে সেখানেই অবস্থান নেন। কিছু এলাকায় কৃষকরা রাস্তায় তাদের ট্রাক্টর রেখে দিয়েছেন, কিছু জায়গায় স্কুলের সদর দরজাই খুলে রাখা হয়েছে যাতে পুলিশ সহজে ভোটগ্রহণ বন্ধ করতে না পারে। গণভোটের আয়োজকেরা পুলিশী বাঁধা শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিহত করার আহ্বান জানিয়েছেন।
সূত্র: বিবিসি

[এফএম]

 

সূত্র : মানবজমিন অনলাইন পত্রিকা