কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় সফর পুনর্বহাল “ট্রাম্পের উপদেষ্টা লিসা আসছেন কাল”

34

কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় অবশেষে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক নিরাপত্তা উপদেষ্টা লিসা কার্টিস-এর ঢাকা সফর পুনর্বহাল হয়েছে। ২৪ ঘণ্টার এক ঝটিকা সফরে কাল ভোরে বাংলাদেশে পৌঁছাবেন তিনি। ওই দিনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীসহ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিনিধিদের সঙ্গে সাক্ষাৎ-বৈঠক হবে তার। রোববার মধ্যাহ্নে লিসার সম্মানে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক ভোজসভার আয়োজন করছেন। সেখানে মার্কিন কর্মকর্তাদের নিয়ে অংশ নেবেন তিনি। জানুয়ারিতে ট্রাম্প প্রশাসন দায়িত্ব নেয়ার পর হোয়াইট হাউসের গুরুত্বপূর্ণ কোনো কর্মকর্তার এটাই হতে যাচ্ছে প্রথম বাংলাদেশ সফর। এ সফরের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ এবং ট্রাম্প প্রশাসনের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা ও বোঝাপড়া আরও বাড়বে আশা করে কর্মকর্তারা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের বিদ্যমান নিরাপত্তা সহযোগিতা বিশেষত সন্ত্রাস ও উগ্রপন্থা দমনে আগামী দিনে দুই দেশ কিভাবে আরও ঘনিষ্ট হয়ে কাজ করতে পারে তা নিয়ে আলোচনা হবে। উন্নয়ন সহযোগিতা, বাণিজ্য, বিনিয়োগসহ দ্বিপক্ষীয় স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি এবং আন্তর্জাতিক ইস্যুগুলোও সফরের আলোচনায় প্রধান্য পাবে। লিসা কার্টিসের সফর পুনর্বহালের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস। দুই পক্ষের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, দুই দেশের বিভিন্ন পর্যায়ে দফায় দফায় আলোচনায় হাই প্রোফাইল সফরটি ঠিক হলেও বৃহস্পতিবার আচমকা এটি স্থগিত করে ওয়াশিংটন। সেই সময় যুক্তরাষ্ট্রের তরফে বলা হয়- রোববার ওয়াশিংটনে একটি ‘জরুরি কর্মসূচি’তে লিসাকে অংশ নিতে হচ্ছে। বিধায় আপাতত তিনি ঢাকা আসছেন না। তবে ঢাকার পরদিন তার দিল্লি সফরের পূর্বনির্ধারিত যে সূচি তা তখনও অপরিবর্তিত ছিল। সে কারণে ঢাকার তরফে বলা হয় লিসা কার্টিস চাইলে দিল্লি থেকে ফেরার পথে বাংলাদেশ সফর করতে পারেন। বাংলাদেশের গুরুত্বের বিষয়টি বিবেচনায় লিসা ঢাকার সেই অনুরোধ রক্ষা করেন এবং ওয়াশিংটনের কর্মসূচি বাদ দিয়ে পুরনো শিডিউল বহাল রেখেই বাংলাদেশ সফরের সিদ্ধান্ত নেন। বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা সেই বার্তা পায়। শুক্রবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও মার্কিন দূতাবাসের কর্মকর্তারা জানান, সফরসূচি পুনর্বহালের পর স্থগিত হওয়া সব প্রস্তুতিও পুনর্বহাল করতে হয়েছে। এ নিয়ে ছুটির দিনেও কাজ করছেন সংশ্লিষ্টরা। উল্লেখ্য, হোয়াইট হাউসে ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি টু প্রেসিডেন্ট অ্যান্ড সিনিয়র ডিরেক্টর ফর সাউথ অ্যান্ড সেন্ট্রাল এশিয়া অ্যাট দ্য ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিল লিসা কার্টিস ট্রাম্প প্রশাসনে অত্যন্ত প্রভাবশালী কর্মকর্তা। দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে অনেক দিন ধরে কাজ করছেন তিনি। বর্তমানে দক্ষিণ এশিয়ার সঙ্গে মার্কিন প্রশাসনের রাজনৈতিক, কূটনৈতিক, কৌশলগত সম্পর্কের বিষয়ে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পকে পরামর্শ দিয়ে থাকেন লিসা। গত এপ্রিলে হোয়াইট হাউসে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব পাওয়ার আগে থিংক ট্যাঙ্ক হেরিটেজ ফাউন্ডেশনের এশিয়ান স্টাডিজ সেন্টারের সিনিয়র ফেলো ছিলেন ওই এশিয়া বিশেষজ্ঞ। তারও আগে মার্কিন সিনেটের ফরেন রিলেশন্স কমিটি, মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেছেন তিনি। পররাষ্ট্র দপ্তরের কর্মকর্তারা জানান, গত মাসে ওয়াশিংটন সফরকালে পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক হোয়াইট হাউসের ওই কর্মকর্তার সঙ্গে বৈঠক করেন। সেই সময় লিসা বাংলাদেশের বিশেষ করে সন্ত্রাস ও উগ্রপন্থা দমনে ঢাকার সার্বজনীন উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেন। সেই বৈঠকে সচিব তাকে সরজমিনে বাংলাদেশ দেখার আমন্ত্রণ জানান।