ক্যাটালোনিয়ায় গণভোটে গণজোয়ার, স্বাধীনতা ঘোষণার দরজা উন্মুক্ত

29

স্বাধীন রাষ্ট্রের অধিকার প্রশ্নে বিজয়ী হয়েছে ক্যাটালোনিয়া। ব্যাপক সহিংসতার মধ্য দিয়ে গণভোট হলেও এ দাবি করেছেন ক্যাটালান নেতা, প্রধানমন্ত্রী কার্লেস পুইগডেমন্ট। তিনি বলেছেন, একতরফাভাবে স্বাধীনতা ঘোষণার দরজা উন্মুক্ত হয়ে গেছে। স্পেন থেকে বের হয়ে নিজেরা স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতির জন্য এ গণভোট আয়োজন করা হয়। কিন্তু স্পেনের সাংবিধানিক আদালত এ ভোটকে অবৈধ বলে ঘোষণা দিয়েছে। ভোট গ্রহণে পুলিশের বাধার সময় ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে আহত হয়েছেন কয়েক শত মানুষ। এ খবর দিয়েছে লন্ডনের অনলাইন দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট ও বিবিসি। এতে বলা হয়, ওই ভোটে স্বাধীনতার পক্ষ্যে ব্যাপক সাড়া পড়েছে। স্বাধীনতার পক্ষে ‘হ্যাঁ’ ভোটে ভোট পড়েছে কমপক্ষে শতকরা ৯০ ভাগ। সোমবার সকালে প্রকাশিত ফল অনুযায়ী, শতকরা ৯০.৯ ভাগ ভোট অর্থাৎ ২০ লাখ ২০ হাজার  ১৪৪ জন ভোটার স্বাধীনতার পক্ষে রায় দিয়েছেন। বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছেন শতকরা ৭.৮৭ভাগ ভোটার। তাদের সংখ্যা এক লাখ ৭৬ হাজার ৫৬৫। আঞ্চলিক সরকারের মুখপাত্র জোরদি তুরুল বলেছেন, এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ১৫০০ ভোট গণনার বাকি ছিল। আঞ্চলিক ভাইস প্রেসিডেন্ট ওরিওল জ্যাঙ্কুয়েরাস বলেছেন, নির্বাচনে ফল যা-ই হোক আমরা তার প্রতি সম্মান দেখাবো। কারণ, নির্বাচনের ফল হবে জনগণের রায়। নির্বাচনের এই ফল যখন ঘোষণা করা হয় তার আগেই ক্যাটালানের প্রধানমন্ত্রী কার্লেস পুইগডেমন্ট স্বাধীনতা ঘোষণা দেয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, গণভোটের ফল আগামী দু’এক সপ্তাহের মধ্যে পাঠানো হবে ক্যাটালোনিয়ার পার্লামেন্টে। তিনি টেলিভিশনে দেয়া এক বক্তব্যে বলেছেন, রোববার নির্বাচনের দিনটি ছিল আশার ও দুর্ভোগের। এ দিনটিতে ক্যাটালোনিয়ার নাগরিকরা স্বাধীন রাষ্ট্রের অধিকারে বিজয়ী হয়েছে। তারা তাদের রাষ্ট্রকে প্রজাতন্ত্র হিসেবে দেখতে চায়। একটি শহরের পর আরেকটি শহরের গণভোটের যে ফল আসছে তাতে দেখা যাচ্ছে স্বাধীনতার পক্ষ বা ‘হ্যাঁ’ ভোট ভূমিধস বিজয়ের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। ওদিকে গণভোটে ভোট গ্রহণের সময়ে পুলিশ কর্মকর্তারা ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নেয়। নির্বাচন কেন্দ্র থেকে ভোটের বাক্স ছিনিয়ে নেয়।

 

 

সূত্র : মানবজমিন অনলাইন পত্রিকা