ক্ষুব্ধ রোনালদো ইংল্যান্ডে ফিরে যেতে চান!

25

স্পেনের আদালতে কর ফাঁকির মামলা হওয়ার পর থেকে ক্ষুব্ধ ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। শুরু থেকেই তিনি এ অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন। এমন কি বিষয়টির কারণে বিব্রত রোনালদো রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে দেয়ার হুমকিও দেন। মামলার শুনানিতে গত সোমবার আদালতে হাজির হন রোনালদো। সেখানকার কিছু কথা সেদিন প্রকাশ হয়। যদিও আদালত থেকে বের হয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি রিয়াল মাদ্রিদের এ পর্তুগিজ উইঙ্গার। তবে সেদিন যে তিনি আদালতে বিচারকের সামনে উঁচু স্বরে রেগে গিয়ে কথা বলেন এটা জানা যায়। তার নাম রোনালদো বলেই তার বিরুদ্ধে কর ফাঁকির অভিযোগ উঠেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। কর ফাঁকির বিষয়টি সম্পূর্ণ অস্বীকার করেন রোনালদো। তার বিরুদ্ধে এটি ষড়যন্ত্র বলেও অভিযোগ করেন। তবে প্রায় সপ্তাহখানেক পর নতুন এক খবর ফাঁস করলো স্পেনের ‘এসইআর রেডিও স্টেশন’। তারা জানালো, সেদিন আদালতে আরো অনেক কথা বলেন রোনালদো। বিচারকের সামনে উঁচু স্বরে বলেন, ‘কর নিয়ে ইংল্যান্ডে আমার কখেনো কোনো ঝামেলা হয়নি। আর এ কারণেই আমি সেখানে ফিরে যেতে চাই। আমি ইংল্যান্ড এবং স্পেনে সম্পূর্ণরুপে কর প্রদান করেছি। আমি কোনোকিছু গোপন করতে চাই না। আমি একটি খোলা বই।’ পর্তুগালের এ ফুটবলার তারকা হয়ে ওঠেন ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে। ২০০৩ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত সেখানে খেলেন তিনি। এরপর যোগ দেন স্পেনের ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদে। ৩২ বছর বয়সী রোনালদো তার সাবেক ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে ফিরে যাওয়ার হুমকিই তখন দেন। রোনালদো তখন আদালদে ইংল্যান্ড ও স্পেনের কর আদায়ের পদ্ধতির ভিন্নতার কথা ব্যাখ্যা করেন। বলেন, ‘ম্যানচেস্টারে যোগ দেই তখন আমার বয়স মাত্র ১৮ বছর। আমার স্পষ্ট মনে আছে, তখন আমাকে সেখানকার কর আদায়ের পদ্ধতি বলে দেয়া হয়। সেখানে কর আদায়ের দারুণ সিস্টেম। অন্য খেলোয়াড়রা যেভাবে কর দিতে আমিও সেভাবে দিতাম। কিন্তু স্পেনে কর আদায়ের পদ্ধতি অনেক ভিন্ন। তারপর ঝামেলা এড়ানোর জন্য আমি কষ্ট করে ইংল্যান্ডের তুলনায় অনেক বেশি কর এখানে দিয়েছি।’ তিনি কখনো কাউকে ফাঁক দেন না দাবি করে বলেন, ‘আমি যেখানেই যাই সেখানকার যে পাওনা তা আদায় করে দিই। আমি ঝামেলায় জড়াতে চাই না। কাউকে ফাঁকি দিতে চাই না। কারণ, সত্য কখনো গোপন থাকে না।’