‘‘খাল ভরাট করে ভবন হয়েছে, পানি যাবে কোথায়?’’ : আনিসুল হক

34

জলাবদ্ধতা নিরসনের ব্যাপারে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক বলেছেন, ‘এটা থেকে মুক্তির জন্য একধরনের বিপ্লব প্রয়োজন। ঢাকার খালগুলোর মধ্যে এখন দুইটাও বোধ হয় নেই। খাল ভরাট করে সেখানে চার-পাঁচতলা ভবন করা হয়েছে। পানি যাবে কোথায়?’

সম্প্রতি বাজেট বক্তৃতাকালে তিনি বলেছিলেন, ‘রাজধানীর ২৬টি খাল কোনোভাবেই উদ্ধার করা সম্ভব নয়। কারণ খালগুলো ভরাট করে বাসাবাড়ি করে ফেলা হয়েছে। তা ছাড়া এ খাল উদ্ধারে সিটি করপোরেশনের করণীয় কিছু নেই।’

জানা গেছে, রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রতি বছর বিপুল অর্থ খরচ করছে দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থাগুলো। ঢাকা ওয়াসা ড্রেনেজ বিভাগের মাধ্যমে দুই যুগে বছরে প্রায় এক হাজার কোটি টাকার সংস্কার ও উন্নয়নকাজ করেছে পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থাপনায়। আর বিগত পাঁচ বছরে পানি নিষ্কাশন কার্যক্রমে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ব্যয় প্রায় এক হাজার কোটি টাকা।

আবহাওয়া অধিদফতরের হিসাব অনুযায়ী, ১১ জুলাই মঙ্গলবার সকাল ছয়টা থেকে বেলা তিনটা পর্যন্ত ঢাকায় বৃষ্টি হয়েছে ৪৩ মিলিমিটার। আর মঙ্গলবার সন্ধ্যা ছয়টা থেকে ১২ জুলাই বুধবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত ঢাকায় ৬০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এতে পানির নিচে চলে গেছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রধান সড়ক, গলিপথসহ আশপাশের অনেক এলাকা।

তবে উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হকের দাবি, ‘এর জন্য সিটি করপোরেশন কোনোভাবেই দায়ী না। খালের মালিক জেলা প্রশাসন, আর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব ওয়াসার। তারা ২৫ বছরে এই খাল কী রক্ষণাবেক্ষণ করেছে, তার হিসাব দিক।’

রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনের মূল দায়িত্ব ঢাকা ওয়াসার বলে জানান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান। তিনি আরও জানান, ওয়াসা সঠিকভাবে না করায় সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে এ বছর শান্তিনগর এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসনে ড্রেন নির্মাণ করা হচ্ছে। কাজ প্রায় শেষের পথে। এ কাজ শেষ হলে ওই এলাকাসহ আশপাশের জলাবদ্ধতাও কমে যাবে।

এদিকে ডিএসসিসির এই প্রকৌশলী বলেন, ‘এ বছর নতুন করে মতিঝিল, গুলিস্তানসহ কয়েকটি জায়গায় জলাবদ্ধতা হচ্ছে। এগুলোও আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। পর্যায়ক্রমে এসব স্থানের জলাবদ্ধতা নিরসনেও উদ্যোগ নেওয়া হবে।’

তবে ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাসকিম এ খান বলেন, ‘ঢাকায় কোনো জলাবদ্ধতা নেই, জলজট আছে। এই জলজট নিরসনের জন্য আমাদের যে কৃত্রিম ব্যবস্থা, তা যথেষ্ট উন্নত। কিন্তু একবারে বেশি বৃষ্টি হলে নিষ্কাশনে সময় বেশি লাগে।’

Advertisement
Print Friendly, PDF & Email
sadi