খেতাব হারানোর পর জান্নাতুল নাঈমের ভিডিওবার্তা

27

‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ খেতাব অর্জন করেও বিয়ের তথ্য গোপন করার অভিযোগে তা হারাতে হয়েছে জান্নাতুল নাঈম এভ্রিলকে। আয়োজক কমিটি তার নাম বাতিল ঘোষণা করেন। কিন্তু এর ফলে মোটেও ভেঙে পড়েন নি তিনি। নতুন বিজয়ী জেসিয়া ইসলামকে অভিনন্দন জানিয়ে তার প্রতি অজস্র ভালোবাসা প্রকাশ করেছেন। ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’-এর আয়োজক প্রতিষ্ঠান অন্তর শোবিজ কর্তৃক বুধবার রাজধানীর একটি পাঁচতারকা হোটেলে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রথম রানারআপ জেসিয়াকে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ ঘোষণা করার পর এক ভিডিওবার্তায় এ অভিনন্দন জানান তিনি। ভিডিওবার্তায়  জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল বলেন, জেসিয়া যেন ‘মিস ওয়ার্ল্ড’-এ গিয়ে বাংলাদেশের মুখ উজ্জ্বল করতে পারে। তিনি আরো বলেন, আমি কিন্তু মোটেও মন খারাপ করিনি। সবাইকে ধন্যবাদ আমার পাশে থাকার জন্য। সাংবাদিক ভাইদেরকেও ধন্যবাদ জানাচ্ছি আমার সম্পর্কে ভালো ভালো খবর প্রকাশ করার জন্য। ভক্তদের উদ্দেশ্যে এভ্রিল বলেন, আপনারা কেউ মন খারাপ করবেন না। আপনারা সবাই জানেন ক্রাউনের জন্য এখানে আমি আসি নি। নিজের কাজের একটা মেসেজ দিতে এসেছি। যেটার কারণে আমার ক্রাউন চলে গিয়েছে, আমার বাল্যবিবাহ, আমি চাই এই বাল্যবিবাহটাকে বন্ধ করতে। এর জন্য আমার যত ধরনের কাজ করা লাগবে আমি করবো। যাতে কোনো মেয়ের স্বপ্ন অর্জনের পর ভেঙে না যায়। তিনি বলেন, আমি সেসব মেয়ের পাশে দাঁড়াতে চাই যারা আমার মতো অবস্থার মুখোমুখি হয়েছে কিংবা ভবিষ্যতে মুখোমুখি হবে। আমি তাদের কাউকে কষ্ট পেতে দিবো না, এটা আমার কাছে আমার একটা কমিটমেন্ট এবং আপনাদের কাছেও আমার একটা কমিটমেন্ট। জান্নাতুল নাঈম এভ্রিল বলেন, আমি আজকে আমার মার্কস দেখেছি, আমি সবচেয়ে হাইয়েস্ট মার্কস পেয়েছি, ফিফটি ওয়ান মার্কস পেয়েছি। আমি সবার চেয়ে বেশি মার্কস পেয়েছি। আমি যোগ্য এটা প্রমাণ হয়েছে। কেউ ফিফটি মার্কস পায়নি। আজকের যে এই অপ্রাপ্তি এটাকে আমি অনুপ্রেরণা হিসেবে নিচ্ছি। এটাকে কাজে লাগিয়ে যেন অন্যান্য মেয়ের পাশে দাঁড়াতে পারি। এদিকে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’-এর খেতাব হারালেও আইসক্রিম ব্র্যান্ড লাভেলোর শুভেচ্ছাদূত নির্বাচিত হয়েছেন জান্নতুল নাঈম। এখন থেকে লাভেলোর মুখ হিসেবে দেশের বিভিন্ন স্থানে বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করবেন তিনি। বুধবার আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতার টাইটেল স্পন্সর লাভেলোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. একরামুল হক।