গঠনতন্ত্র পাস না করতে এনএসসিকে আইনি নোটিশ

31

এবার জাতীয় ক্রীড়া পরিষদকে (এনএসসি) আইনি নোটিশ পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সাবেক পরিচালক ও গঠনতন্ত্র সংক্রান্ত মামলার বাদী স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন। কোর্টের রুলের জবাব ও তা নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত যেন বিসিবির ২০১৭ সালের সংশোধিত গঠনতন্ত্র পাস না করে, যেজন্য এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, ‘বিসিবির বর্তমান কমিটিকে অবৈধ বলে চ্যালেঞ্জ করে আমরা রিট করেছিলাম। সেই রিটের আদেশে মহামান্য আদালত জাতীয় ক্রীড়া পরিষদকে রুল জারি করেন। সেখানে বিসিবির এজিএম নিয়ে কোনো আদেশ না থাকলেও  রুলে এনএসসি কেন বিসিবির বর্তমান কমিটিকে অবৈধ ঘোষণা করবে না তা জানতে চেয়ে নোটিশ দেয়া হয়। চার সপ্তাহের মধ্যে তার জবাবও দিতে বলা হয়েছে রুলে। যেখানে এনএসসি এখনো জবাব দেয়নি আর আদালতও এখন পর্যন্ত রুলের নিষ্পত্তি করেননি, সেখানে এনএসসি কোনোভাবে বিসিবির গঠনতন্ত্র পাস করতে পারে না। আমরা সেটি জানিয়েই আজ (গতকাল) এ নোটিশ পাঠিয়েছি এনএসসিকে।’
কেন বিসিবির কমিটিকে অবৈধ ঘোষ্যণা করা হবে না সেই রুলের চার সপ্তাহের মধ্যে জবাব দেয়ার কথা এনএসসির। কিন্তু এজিএম-এর বিষয়ে আদালত কোন দিকনির্দেশনা না দেয়ায় সোমবার বিসিবির বর্তমান কমিটি নির্বাচিত হওয়ার চার পর রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে তাদের বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) ও বিশেষ সাধারণ সভা (ইজিএম) আয়োজন করে। সেখানেই ২০১২ সালের সংশোধিত গঠনতন্ত্রে তেমন কোনো পরিবর্তন না এনে ইজিএমে ২০১৭ গঠনতন্ত্র হিসেবে পাস করি। এরপর বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানান, ‘আমরা এবার যে গঠনতন্ত্র করেছি তাতে খুব বেশি পরিবর্তন আনিনি। সুপ্রিমকোর্ট বলে দিয়েছিল যে আইসিসির গাইড লাইন অনুসারে বিসিবি গঠনতন্ত্রে যে যে পরিবর্তন প্রয়োজন, তা আনতে পারে। আমরা রায়ের পরই এজিএম ও ইজিএম ডেকে আইন পরামর্শ নিয়ে ২০১৭ সালের এ গঠনতন্ত্র পাস করেছি। মূলত ২০১২ সালের গঠণতন্ত্রটাই তেমন কোনো পরিবর্তন না এনে আমরা পাস করেছি। শুধু মাত্র জাতীয় ক্রীড়া পরিশোধ (এনএসসি) যে তিনটি কাউন্সিলর কোটা ছিল আমরা সেখানে একটা পরিবর্তন এনেছি। এখন সেটি এনএসসিতে পাঠনো হবে অনুমোদনের জন্য এরপরই তা পাস হয়ে এলে আমরা বোর্ডসভা করে নির্বাচন কমিশন গঠন করবো। নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের সময় ঘোষণা করবে।’
বিসিবির আশা ছিল দ্রুত এনএসসি থেকে গঠনতন্ত্রে অনুমোদন নিয়ে নির্বাচন ঘোষণা করা। কিন্তু গতকাল এনএসসিকে পাঠানো নোটিশের কারণে বিসিবির সেই স্বপ্ন হয়তো পূরণ হচ্ছে না। এনএসসিকে আইনি নোটিশের বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে বিসিবি সভাপতিকে পাওয়া যায়নি। তবে মোবাশ্বের হোসেন বলেন, ‘আমরা আইনের ওপর আস্থা রাখি। হাইকোর্ট যেভাবে তাদের নির্দেশনা দেবেন আমরা সেভাবেই চলবো।’