গাইলেন পূর্ণিমা সঙ্গে ইমরান

47

নায়িকা পূর্ণিমার অভিনয়ে দর্শক মুগ্ধ হয়েছেন অনেক আগেই। উপস্থাপনার মধ্যদিয়েও তিনি দর্শককে ভালোলাগায় আবিষ্ট করেছেন সম্প্রতি। মডেল হিসেবেও এ পর্দাকন্যা দর্শকের কাছে জনপ্রিয়। অভিনেত্রী, মডেল এবং উপস্থাপিকা- এই তিন পরিচয়ের বাইরে নুতন আরো একটি পরিচয়ে পরিচিত হতে যাচ্ছেন পূর্ণিমা। এবার তাকে দর্শক গাইতে দেখবেন। এই সময়ের শ্রোতানন্দিত কৎণ্ঠশিল্পী ইমরান ২০১৫ সালে গাওয়া এবং সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে আলোচিত গান ‘বলতে বলতে চলতে চলতে’ নতুন করে গেয়েছেন। আর এই গানেই তার সঙ্গে কণ্ঠ দিয়েছেন পূর্ণিমা। গেল ২৬শে সেপ্টেম্বর বিকালে রাজধানীর নিউ বেইলি রোডে ইমরানের নিজস্ব স্টুডিওতে পূর্ণিমা এই গানে কণ্ঠ দেন। ইমরানের সুর সংগীতে এই গানে কণ্ঠ দেয়ার সময় নতুন এক অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হন পূর্ণিমা। ভয়েস দেয়ার সময় ইমরান তাকে দারুণভাবে সহযোগিতা করেছেন। যে কারণে রেকর্ডিং শেষে উপস্থিত যারাই গানটি শুনেছেন মুগ্ধ হয়েছেন। ধারণাই করা যায়নি পূর্ণিমা এতটা ভালো গান গাইতে পারেন। শফিক তুহিনের লেখা ইমরানের সুর-সংগীতে ইমরানেরই গাওয়া এই গানটি এরইমধ্যে ইউটিউবে প্রায় এক কোটি আশি লাখ ভিউয়ার্স উপভোগ করেছেন। রেকর্ডিং শেষে পূর্ণিমার গায়কী প্রসঙ্গে ইমরান বলেন, তার গায়কীতে আমি সত্যিই বিস্মিত হয়েছি, মুগ্ধ হয়েছি। শুরু থেকেই যদি এই গানের কোনো ফিমেল ভার্সন থাকতো তবে এর চেয়ে ভালো আর হতো না। গানটি নিয়ে আমি নতুনভাবে খুব আশাবাদী। আশা করি পূর্ণিমা আপুর কণ্ঠে আমার গানের নতুন এই আয়োজন সবাই বেশ উপভোগ করবেন। পূর্ণিমা বলেন, আমি কিছুটা অসুস্থ ছিলাম। কিন্তু তারপরও ভয়েস দিই। গানটি গাওয়ার সময় বিশ্বাসই হচ্ছিল না যে আমি এত ভালোভাবে গাইতে পারছি। তবে এই গানে আমার কণ্ঠকে যথাযথভাবে শ্রোতা-দর্শকের কাছে তুলে ধরার পুরো কৃতিত্ব ইমরানের। আমিও গানটি নিয়ে অনেক আশাবাদী। পূর্ণিমা এবং ইমরানের এই গানে তারা দু’জনই পারফর্ম করবেন আগামীকাল সন্ধ্যা সাতটায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠেয় ‘১২তম চ্যানেল আই মিউজিক অ্যাওয়ার্ডস পাওয়ার্ড বাই সেভেন আপ’ অনুষ্ঠানে। অনুষ্ঠানটি পরিকল্পনা ও পরিচালনা করছেন ইজাজ খান স্বপন। পূর্ণিমা ও ইমরানের পারফরম্যান্সের কোরিওগ্রাফি করবেন ঈগলস ডান্স গ্রুপের প্রধান তানজিল। এদিকে ঈদের পর এখনো পূর্ণিমা অভিনয়ে ফিরেননি। আর সাম্প্রতিক সময়ে ইমরানের গাওয়া যে তিনটি গান শ্রোতা-দর্শককে মুগ্ধ করেছে সেগুলো হচ্ছে আবদার রহমানের লেখা ‘ধোঁয়া, স্নেহাশীষ চক্রবর্তীর লেখা ‘ঠিক বেঠিক’ এবং জুলফিকার রাসেলের লেখা ‘আমার ইচ্ছে কোথায়’। তিনটি গানেরই সুর সংগীত ইমরানের।