চণ্ডিকার লক্ষ্য অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ

28

বাংলাদেশ সফরে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের এখনো আসা নিশ্চিত হয়নি। তবে অস্ট্রেলিয়া আসুক বা নাই আসুক এরই মধ্যে টাইগারদের প্রধান কোচ চণ্ডিকা হাথুরুসিংহে অজিদের হোয়াইটওয়াশ করার লক্ষ্য স্থির করে ফেলেছেন। নিজের দেশের মাটিতে স্মিথদের মুশফিক বাহিনী যাতে ছাড় না দেয় সেইভাবে শিষ্যদের প্রস্তুত করছেন কোচ। কাল চট্টগ্রামের উদ্দেশে দল নিয়ে তিনি ঢাকা ছাড়বেন। সেই কারণেই মুষলধারে বৃষ্টি মাথায় নিয়েই গতকাল মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে ক্যাম্প শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসে কথা বলেন তিনি। দলের লক্ষ্য নিয়ে চণ্ডিকা বলেন, ‘আমার মনে হয়, টেস্টে আমরা কিছুটা এগিয়েছি। আমরা এখন জানি যে, অন্তত উপমহাদেশে জেতার মতো ম্যাচ পরিকল্পনা আমাদের আছে। আমরা সেটা করে দেখিয়েছি। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দু’টি টেস্টে তাই অবশ্যই আমরা জিততে চাই। আমরা মনে করি, নিজেদের কন্ডিশনে আমরা যথেষ্ট লড়াকু দল।’
টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশ দলের অবস্থান এখন ৯-এ। যদিও অস্ট্রেলিয়া এখনো র‌্যাঙ্কিংয়ের তৃতীয় শীর্ষ দল। এরপরও টাইগারদের প্রধান কোচের অজিদের হোয়াইটওয়াশ করার হুঙ্কার নিয়ে হয়তো প্রশ্ন তুলতে পারেন কেউ। তবে তার এমন আত্মবিশ্বাসের কারণ সম্প্রতিক টাইগারদের টেস্টে জয়। বিশেষ করে দেশের মাটিতে ইংল্যান্ডকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। পরে নিউজিল্যান্ড ও ভারত সফর খুব ভালো না গেলেও টেস্ট জিতেছে শ্রীলঙ্কায়। তাও নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসের শততম টেস্ট। র‌্যাঙ্কিংয়ের আটে থাকা ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে রেটিং পয়েন্টের ব্যবধান এখন ৬। গত মৌসুমের সেই উন্নতির পথ ধরেই নতুন মৌসুমে দারুণ কিছু করার আত্মবিশ্বাস পাচ্ছেন হাথুরুসিংহে। তাই তিনি বিশ্বাস করেন অস্ট্রেলিয়াকে নিজেদের মাটিতে বাংলাদেশ দুই টেস্টেই হারাতে সক্ষম। সেই লক্ষ্যেই মাঠে নামবে মুশফিকরা। ‘গত দুই বছরে টেস্ট ও ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশ যেমন সাফল্য দেখিয়েছে, সেটার ধারাবাহিকতাটাই দেখতে চান টাইগারদের কোচ, হাথুরুসিংহে বলেন, ‘আমরা প্রথমে দেশের মাটিতে ভালো খেলা শুরু করি, জিততে থাকি। পরে বিশ্বকাপে গিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনাল খেলি। সেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারাই হবে আসল কাজ। পারফরম্যান্সের পরিচর্যা করাই এখন মূল চ্যালেঞ্জ।’
অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়া সিরিজের পর দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যাবে বাংলাদেশ। কিন্তু আফ্রিকার কন্ডিশন ও ওখানকার উইকেট মানিয়ে নিতে হিমশিম খায় বিশ্বের সব দলই। টাইগারদের জন্য তো আরও বেশি কঠিন সেখানে মানিয়ে নেয়া। যে কারণে নিজেদের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর অনেক অনেক বেশি চ্যালেঞ্জর হবে বলে মনে করেন প্রধান কোচ চণ্ডিকা হাথুরুসিংহে। তিনি বলেন, ‘আমাদের আসল চ্যালেঞ্জটা হবে অস্ট্রেলিয়া সিরিজের মাত্র অল্প ক’দিন পরই। সেটি দক্ষিণ আফ্রিকায় যাওয়া এবং মানিয়ে নেয়া। দক্ষিণ আফ্রিকা আমাদের জন্য অপরিচিত। শুধু আমাদের নয়, সব দলের জন্যই ওখানে গিয়ে খেলা কঠিন। টেস্টের এক নম্বর দল ওরা। ওটা বড় চ্যালেঞ্জ হবে।’ তবে কঠিন হলেও যে কোনো চ্যালেঞ্জেই দলকে প্রস্তুত করছেন কোচ। তিনি বলেন, ‘কন্ডিশনের সঙ্গে ম্যাচ পরিকল্পনাও কঠিন হবে। ওই সফর নিয়ে পরিকল্পনাও আছে আমাদের। স্রেফ দ্রুত মানসিক ও শারীরিকভাবে মানিয়ে নিতে হবে। টেস্টের আগে প্রথম দুই সপ্তাহে যে প্রস্তুতি ম্যাচ ও অন্য যে ক’দিন আছে, মানিয়ে নেয়ার জন্য সেই দিনগুলি হবে গুরুত্বপূর্ণ।’
গত বছর থেকেই টানা ক্রিকেটের মধ্যে ছিল বাংলাদেশ দল। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পর কিছুদিনের বিশ্রাম পেয়েছে টাইগাররা। তাই এ সময়ে শুরু হয় টাইগারদের কন্ডিশনিং ক্যাম্প। এরপর গত সপ্তাহ থেকে শুরু হয় তাদের স্কিল ট্রেনিং। মূলত স্কিল ট্রেনিংয়ের আগে ফিটনেসটাকে বেশি জোর দেয়া হয়েছিল দলের পক্ষ থেকে। এ বিষয়ে প্রধান কোচ বলেন, ‘আমাদের ছেলেরা টানা খেলার মধ্যে ছিল তাই ফিটনেস নিয়ে কাজ করতে পারিনি। এখন সে সুযোগ হয়েছে। তাই ফিটনেস অনুশীলন দিয়েই শুরু করেছি। এখন তাদের স্কিল উন্নত করার কাজ চলছে অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজকে লক্ষ্য রেখে।’ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে চট্টগ্রামেও একটি টেস্ট খেলতে হবে। তাই গতকাল আপাতত শেষ হলো অনুশীলনের ঢাকা পর্বের অনুশীলন। কাল একদিনের বিশ্রাম। এরপর চট্টগ্রামে অনুশীলন করতে যাবে টাইগাররা। সেখানে একটি তিন দিনের ম্যাচও খেলবে। তারপর ১২ই আগস্ট আবার ঢাকায় ফিরবে হাথুরুসিংহের শিষ্যরা।