ঝিনাইগাতীতে অসহায় ও দরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

32

হারুন অর রশিদ দুদু : শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলাতে অসহায় ও দরিদ্র ২৫০ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ২৯ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার যিদনী মডেল স্কুল মাঠে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘ভয়েস অফ ঝিনাইগাতী’র উদ্যোগে বিতরণ করা হয়। এতে আমেরিকার নিউজার্সিতে অবস্থিত একটি ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানির প্রধান গবেষক ড. জাফর ইকবালের আর্থিক সহায়তা খাদ্য সামগ্রী মধ্যে ছিল চাল, ডাল, তেল, আলু, পেঁয়াজ, লবণ, মুড়ি ও চিনি। পরে উপস্থিত সকলের মাঝে মাস্ক বিতরণ করা হয়।

এসময় ঝিনাইগাতী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুস সামাদ, প্রচার সম্পাদক মুজিবর রহমান, বণিক সমিতির সভাপতি মুখলেছুর রহমান খান, সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুদ মিয়া, ভয়েস অফ ঝিনাইগাতী’র প্রতিষ্ঠাতা মো. জাহিদুল হক মনির, সংগঠনের প্রশাসনিক এডমিন মোশারফ হোসাইন উপস্থিত ছিলেন।

ঘোষগাঁও এলাকার বাসিন্দা লাল মিয়া বলেন, ‘অনেক কিছু পেয়েছি। এখন আরামে কয়দিন খেতে পারবো। আল্লাহ রহম এখন আর কোন কষ্ট হবে না। আপনাদের মতো ঝিনাইগাতীতে আরও মানুষ দরকার, তাহলে মানুষ আর কষ্টে থাকবে না। আমরা শুনলাম কোন বিদেশি নাকি আমাদের এসব খাবার দিছে আমরা মন থেকে দোয়া করি, আল্লাহ যেনো তাকে সুখি করে।’

ভয়েস অফ ঝিনাইগাতী’র প্রতিষ্ঠাতা মো. জাহিদুল হক মনির বলেন, ‘আমাদের এ সংগঠনটি বাল্যবিবাহ এবং সমাজের গরীব, দু:স্থ, অসহায় পরিবার ও শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধানে কাজ করে আসছে। সেই ধারাবাহিকতায় ড. জাফর ইকবাল ভাইয়ের অর্থায়নে আমরা খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করতে পেরেছি। আমরা বিশ্বাস করি আমাদের মতো বিভিন্ন সংগঠন ও বিত্তবানরা যদি সমাজের অসহায় মানুষের মাঝে এগিয়ে আসে তাহলে লকডাউনে মানুষ আর কষ্টে থাকবে না।

তিনি আরও বলেন, করোনার প্রথম ধাপে আমরা হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও মাস্ক বিতরণ করেছি। এছাড়া শিক্ষার্থীদের ভর্তির টাকা জোগার করে দিয়েছি আমাদের ‘ভয়েস অফ ঝিনাইগাতী’র ফেসবুক গ্রুপ থেকে। আমরা চেষ্টা করছি প্রতিনিয়ত মানুষকে সহযোগিতা করার।’

ঝিনাইগাতী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান বলেন, ‘খুব ভালো একটি উদ্যোগ নিয়ে ‘ভয়েস অফ ঝিনাইগাতী’। আমিও তাদের সাথে ব্যক্তিগতভাবে কাজ করার চেষ্টা করবো। কারণ সবাই যদি এগিয়ে আসে তাহলে অসহায় ও দু:স্থ মানুষের কষ্ট লাগব হবে। এজন্য বিভিন্ন সংগঠন ও সমাজের বৃত্তবানরা এগিয়ে আসার দরকার।’