ঝিনাইগাতীতে মানসিক প্রতিবন্ধী গোল ভানুর ভাগ্যে জুটেনি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড

38

হারুন অর রশিদ দুদু : শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলার মালিঝিকান্দা ইউনিয়নের চেঙ্গুরিয়া গ্রামের শহিদুল ইসলামের প্রতিবন্ধী স্ত্রী গোল ভানু (২৮) এর ভাগ্যে জুটেনি একটি প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড। গোল ভানুর স্বামী শহিদুল ইসলাম দিনমজুরের কাজ করে সংসার চালাতেন। বর্তমানে শহিদুলেরও শারীরিক অবস্থা ভাল না। সপ্তাহে এক দুই দিন মজুরের কাজ করলেও বাকী দিন গুলো ঘরে সুয়ে বসে কাটিয়ে দেন।

১০ জুন বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে বিনা চিকিৎসায় থাকার কারণে গোল ভানু (২৮) এখন মানসিক প্রতিবন্ধী হয়ে শিকলে বন্দি রয়েছেন। অভাব-অনটনে চিকিৎসা করাতে পারছেন না গোল ভানুর স্বামী ও স্বজনরা। ফলে প্রতিবন্ধী গোল ভানুসহ ৩ সন্তানকে নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন স্বামী শহিদুল। শহিদুলের তিন সন্তান তন্মধ্যে ২ জন মেয়ে ও ১ জন ছেলে। শহিদুলের বড় মেয়েটিও প্রতিবন্ধী। ঝিনাইগাতী উপজেলার মালিঝিকান্দা ইউয়িনের চেঙ্গুরিয়া কালিবাড়ী গ্রামের বাসিন্দা শহিদুল। শহিদুলের স্ত্রী গোল ভানু গত তিন মাস যাবত মানসিক ভারসাম্যহীন আচরণ করতে শুরু করেছেন।

গোল ভানুর স্বামী শহিদুল জানান, ছেলে ও মেয়েসহ তাদের ৫ সদস্যের পরিবার। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম তিনি। শহিদুলের একার আয় দ্বারায় ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের নিয়ে সংসারে অভাব অনাটন লেগেই আছে। ফলে অর্থের অভাবে চিকিৎসা করতে পারছেনা সে। শহিদুলের একটি থাকার ঘর ছাড়া আর কোন জায়গা জমি নেই। সে নিজেও অসুস্থ। মাঝে মধ্যে শরীর ভালো থাকলে দিন মজুরের কাজ করে চাল-ডাল কিনেন তিনি।

শহিদুল আরো জানান, তার সন্তান ও স্ত্রীর নামে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড চেয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছে দীর্ঘদিন থেকে অনেক আবেদন নিবেদন করেছেন। কিন্তু তাদের ভাগ্যে কোনো সাহায্য-সহযোগিতা বা প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড জুটেনি বলে এমনটাই জানান।