ঝিনাইগাতীর উঁচু এলাকা থেকে ঢলের পানি নেমে গেলেও প্লাবিত হয়েছে নতুন নিম্নাঞ্চল

22

শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার পাহাড়ি ঢলে প্লাবিত ৩টি ইউনিয়নের উঁচু জায়গাগুলো থেকে পানি নেমে গেলেও নিম্নাঞ্চলে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। নেমে যাওয়া ঢলের পানিতে রবিবার ভোর পর্যন্ত আরো দুটি ২টি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। যার ফলে নিম্নাঞ্চলে বাসরত মানুষজন দুর্ভোগে পড়েছে।
গতকাল শনিবার ভোরে অতিবৃষ্টির কারণে ভারতের থেকে উজান বেয়ে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে মহারশি নদীর বাঁধ ভেঙ্গে ঝিনাইগাতী উপজেলা শহরসহ, সদর ইউনিয়ন, ধানশাইল ও মালিঝিকান্দা ইউনিয়ন প্লাবিত হয়। তবে বিকালের মধ্যেই উপজেলা শহরসহ উঁচু জায়গুলো থেকে ঢলের পানি নেমে যায়। এই নেমে যাওয়া পানিতে গতকাল বিকাল থেকে আজ রবিবার ভোর পর্যন্ত গৌরীপুর ও হাতিবান্ধা ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফারজানা করিম বলেন, ‘কালকের ঢলে প্লাবিত উঁচু জায়গা থেকে পানি নেমে গিয়েছে। নেমে যাওয়া পানিতে আরো কিছু নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। তবে ঢলের পানিতে বড় ধরণের কোন ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা ঘটেনি। যেসব নিম্নাঞ্চল এখনো পানির নিচে সেসব জায়গার ক্ষতির পরিমান নির্ণয়ের জন্য প্রশাসন কাজ করে যাচ্ছে।’
ঝিনাইগাতী উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম বাদশা জানান, ‘আমি ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামগুলো ঘুরে দেখেছি। বেশ কিছু পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। উপজেলার প্রশাসনের পক্ষে যেটুকু করা সম্ভব তা আমরা করবো।’
উপজেলা চেয়ারম্যান আরো জানান, ‘মহারশি নদীর রামেরকুড়া এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ দিয়ে ঢলের পানি প্রবেশ করেছে। এই বাঁধটি অতিদ্রুত মেরামতের প্রয়োজন।’