টম ক্রুজ আর ব্রুস লি একসঙ্গে আসছেন স্টার সিনেপ্লেক্সে!

41

হলিউডের হার্ট থ্রব অভিনেতা টম ক্রুজ আর অকালপ্রয়াত মার্শাল আর্ট তারকা ব্রুস লি একসঙ্গে আসছেন ঢাকার মাল্টিপ্লেক্স প্রেক্ষাগৃহ স্টার সিনেপ্লেক্সে! একটু চমকে যাবার মতোই খবরটা। ব্রুস লি তো দুনিয়াতেই নেই, আর টম ক্রুজ! বিষয়টা ঘটছে ঠিকই, তবে বাস্তবে নয়, সিনেমার পর্দায়। ২৯শে সেপ্টেম্বর শুক্রবার আন্তর্জাতিক মুক্তির দিনেই স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পাচ্ছে টম ক্রুজের নতুন ছবি ‘আমেরিকান মেড’। একই দিনে এই প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে কিংবদন্তি মার্শাল আর্ট শিল্পী ব্রুস লি-কে নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্র ‘বার্থ অব দ্য ড্রাগন’। হলিউড সিনেমাপ্রেমীদের নড়ে-চড়ে বসার সময় হয়ে এসেছে আবার। নতুন ছবি নিয়ে পর্দায় আসছেন প্রিয় তারকা টম ক্রুজ। যার ছবির জন্য উম্মুখ হয়ে থাকেন অগনিত দর্শক। সাড়ে তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে দর্শকদের হৃদয় কাঁপানো এই অভিনেতার নতুন কোনো ছবির ঘোষণা আসার পরই শুরু হয় আকুল অপেক্ষা। আর ছবি মুক্তির দিন যত ঘনিয়ে আসে উৎসাহের পারদ তত উপরে উঠতে থাকে। গত জুনে মুক্তি পাওয়া ‘দ্য মামি’র রেশ কাটতে না কাটতেই শুরু হয়ে গেছে নতুন ছবি নিয়ে আলোচনা। এবারের ছবির নাম ‘আমেরিকান মেড’। গ্যারি স্পিনেলির রচনায় ছবিটি পরিচালনা করেছেন ডগ লিম্যান। এর আগে এই পরিচালকের সাড়া জাগানো ছবি ‘এজ অব টুমরো’তে অভিনয় করেছেন টম ক্রুজ। নতুন ছবিতে টম ক্রুজ ছাড়াও বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন সারাহ রাইট, ডমন্যাল গে¬সন, জেয়মা মায়স, জেসি প্লেমনস প্রমুখ। সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত ‘আমেরিকান মেড’-এ টম ক্রুজ অভিনয় করেছেন পাইলট ব্যারি সিলের চরিত্রে, যিনি ছদ্মবেশে কলম্বিয়ার মাদক সম্রাট পাবলো এসকোবারের হয়ে কাজ করতেন। একইসঙ্গে সিআইএ-এর হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে মাদকবিরোধী সবচেয়ে বড় অভিযানে যুক্ত হন। এ ঘটনার সূত্র ধরে ইরান কন্ট্রা কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান। নানা ঘাত-প্রতিঘাত আর ঘটনা প্রবাহের মধ্য দিয়ে এগিয়ে যায় ছবির কাহিনী। ব্যারি সিলের ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য বিমান চালনার প্রশিক্ষণ নিয়েছেন টম ক্রুজ। ছবির শুটিং করতে গিয়ে কলম্বিয়ায় বিমান দুর্ঘটনা ঘটে। এতে দুইজন নিহত ও একজন গুরুতর আহত হন। তবে একই সেটে টম ক্রুজ থাকলেও বিমানে ছিলেন না তিনি। গত জুনে ছবির ট্রেলার মুক্তির পর থেকে দর্শকদের বিপুল সাড়া দেখা যায়। ইতোমধ্যে প্রকাশিত রেটিংয়েও দারুণভাবে এগিয়ে আছে ছবিটি। বক্স অফিস সাফল্যেও এর অগ্রযাত্রায় কোনো বেগ পেতে হবে না বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। এদিকে, মার্শাল আর্ট জগতে বহুল আলোচিত নাম ব্রুস লি। মাত্র ৩২ বছরের জীবনে কিংবদন্তি হয়ে ওঠা এই শিল্পী আজও জায়গা করে আছেন অগনিত ভক্তের হৃদয়ে। হাতে গোনা কয়েকটি চলচ্চিত্র করলেও উদ্ভাবনী মার্শাল আর্টের প্রদর্শনীর মাধ্যমে স্মরণীয় হয়ে আছেন তিনি। ব্যক্তি ব্রুস লি এসেছেন চলচ্চিত্রে, কখনো বা উপন্যাসের পাতায়। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তাকে নিয়ে নির্মিত হয়েছে পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ও তথ্যচিত্র। সবশেষ চলচ্চিত্র ‘বার্থ অব দ্য ড্রাগন’। ব্রুস লির জীবনের বাঁকবদলের এক ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে ছবিটি। ষাটের দশকের শুরুতে ব্রুস লি যখন কুংফু শিক্ষক হিসেবে বেশ নাম করেন তখন তিনি চ্যালেঞ্জ করেন ওং জ্যাক ম্যান নামের এক বিখ্যাত মার্শাল আর্ট গুরুকে। তাদের এই দ্বৈরথ এবং লির জীবনের বেশ কিছু ঘটনাকে কেন্দ্র করেই এগিয়েছে ছবির কাহিনি। জর্জ নলফির চলচ্চিত্রে লির ভূমিকায় অভিনয় করেছেন হংকংয়ের তারকা ফিলিপ ইং। এ ছাড়া আরো আছেন জিয়া ইউ, জিন জিং, বিলি ম্যাগনুসেন প্রমুখ। ১৯৬৫ সালে সান ফ্রান্সিসকোতে ঘটা এই সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত হলেও পরিচালক চলচ্চিত্রে এনেছেন অনেক কাল্পনিক চরিত্র ও কাহিনি। এমনকি ছবিতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা লির বন্ধু হিসেবে চিত্রায়িত স্টিভ ম্যাককি চরিত্রটিও সম্পূর্ণ কল্পনাপ্রসূত। বিখ্যাত মার্শাল আর্টিস্ট কোরি ইউয়েনের অ্যাকশন পরিচালনায় চলচ্চিত্রের মার্শাল আর্টের বিভিন্ন প্রদর্শনী উঠে এসেছে আকর্ষণীয়ভাবে। তবে বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হওয়ার পর থেকেই নানা সমালোচনার মধ্যে পড়তে হয় ছবিটিকে। লির থেকে স্টিভ ম্যাককি চরিত্রটিকে অধিক প্রধান্য দেয়ায় হলিউডকে বর্ণবাদী আখ্যা দেয় ভক্তরা। সম্পাদনার পর লিকে প্রধান চরিত্র হিসেবে রূপায়িত করলেও মার্শাল আর্টের প্রতি তার ভালোবাসা এবং দর্শন অনেকাংশেই অনুপস্থিত বলে অভিযোগ করেন অনেকে। ছবিটি নিয়ে তার মেয়ে শ্যানন লি এতটাই বিরক্ত ছিলেন যে, এর কোনো অনুষ্ঠানেই তাকে দেখা যায়নি। তার ভাষ্য মতে, ‘আমার বাবার দর্শন উপেক্ষিত হয়েছে এ চলচ্চিত্রে। মার্শাল আর্টের প্রতি তার ভালোবাসাকে একেবারেই প্রকাশ করতে পারেননি নির্মাতারা।