ঢাকায় এশিয়া কাপ হকি: বাকি আর ৪ দিন র‌্যাঙ্কিংয়ে উন্নতিই লক্ষ্য বাংলাদেশের

21

১৯৮৫ সালে শেষবার এশিয়ার সবচেয়ে বড় ও মর্যাদার হকি টুর্নামেন্টের আয়োজক হয়েছিল বাংলাদেশ। ৩২ বছর পর আবার এশিয়া কাপ আয়োজন নিয়ে এখন কর্মমুখর মওলানা ভাসানী স্টেডিয়াম। সফল আয়োজনের পাশাপাশি দলের মাঠের পারফরম্যান্স ভালো করতে জিমিরাও ঘাম ঝরাচ্ছেন। লক্ষ্য একটাই নিজেদের মাঠে সেরাটা উজাড় করে র‌্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি ঘটানো।
হকি স্টেডিয়ামে ফ্লাডলাইট স্থাপনসহ অন্যান্য সংস্কার কাজ চলায় হকি দল গত ১০ই সেপ্টেম্বর থেকে অনুশীলন করে বিকেএসপিতে। ২৫ দিনের বিকেএসপি পর্ব শেষ করে গত বুধবার সকালে ঢাকায় ফিরেছেন জিমিরা। ঢাকায় ফেরার জন্য সকালের সেশন অনুশীলন করতে পারেননি তারা। তবে বিকাল থেকেই টুর্নামেন্ট ভেন্যুতে অনুশীলন শুরু স্বাগতিক দলের। এরপর থেকে চলছে দু’বেলা অনুশীলন। আগামীকাল অফিসিয়াল হোটেলে উঠবে দলগুলো। হারুনের শিষ্যরা এর আগে থাকছেন মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামের ডরমেটরিতে। টুর্নামেন্টকালীন সময় লাল-সবুজ জার্সিধারীরা থাকবে হোটেল পূর্বানিতে। এশিয়া কাপের জন্য বাংলাদেশ প্রস্তুতি শুরু করেছে ৬ই জুলাই। মাঝে তারা দুই সপ্তাহ সফর করে এসেছে চীনের গানসু প্রদেশ। সেখানে অনুশীলনের পাশপাশি প্রস্তুতি ম্যাচও খেলেছে বাংলাদেশ। তবে বড় কোনো দলের সঙ্গে প্রস্তুতির ঘাটতি রেখেই স্বাগতিকদের নামতে হবে ঘরের মাঠের এশিয়া কাপে। কোচের চাহিদা অনুযায়ী, টুর্নামেন্টের আগে গোটা তিনেক প্রস্তুতি ম্যাচ আয়োজনের চেষ্টা করেও দল ঠিক করতে পারেনি ফেডারেশন। ভারত, চীন, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়ার দুয়ারে দুয়ারে ঘুরেও কাউকে রাজি করাতে পারেনি। তবে ৩০ মিনিটের একটি ম্যাচ খেলতে রাজি হয়ে বাংলাদেশের দুধের স্বাদ ঘোলে মেটানোর ব্যবস্থা করেছে জাপান। আগামীকাল দুপুরে হবে বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যেকার সংক্ষিপ্ত প্রস্তুতি ম্যাচটি। ম্যাচ মাত্র ৩০ মিনিটের কেন? ‘আমিই বলেছি মাত্র ২ কোয়ার্টারের ম্যাচের কথা। কারণ জাপান আমাদেরই গ্রুপের দল। ৩০ মিনিট খেলে আসলে নিজেদের একটু ঝালিয়ে নেয়া আর কী!’-বলেন জাতীয় হকি দলের প্রধান কোচ মাহবুব হারুন। হকি ফেডারেশন তো চাইছে কোরিয়াকে রাজি করাতে, সেটা পারলে পরের দিন একটা ম্যাচ খেলানো হবে। তবে তাতে সম্মতি নেই প্রধান কোচ মাহবুব হারুনের। তিনি বলেন, ‘আমাদের প্রথম ম্যাচ ১১ই অক্টোবর। ৯ তারিখে কোনো ম্যাচ খেলা ঠিক হবে না। প্রস্তুতি ম্যাচের ঘাটতি থাকলেও টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ প্রস্তুতি জানিয়ে হারুন বলেন, আমরা প্রস্তুত। শেষ ২০ দিন ম্যাচ পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করেছি। দলকে মানসিকভাবে অনুপ্রাণিত করার চেষ্টা করেছি। এই টুর্নামেন্টে আমাদের লক্ষ্য র‌্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি করা। ছেলেদের বুঝিয়েছি প্রতিপক্ষ ভারত, পাকিস্তান যেই হোক তোমরা হারার আগেই হার মেনে নিও না। লড়াই কর। তিনি আরো বলেন, আমরা শুরুটা ভালো করত চাই। কারণ শুরু ভালো হলে তার প্রভাব পরের ম্যাচে পরবে। আগামীকাল জাপানের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ওই ম্যাচে ভিন্ন ফরমেশনে খেলাব ছেলেদের জানান জাতীয় দলের এই কোচ। বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি বলেন, দীর্ঘদিন পর নিজেদের মাঠে বড় টুর্নামেন্ট খেলতে যাচ্ছি। নিজেদের সামর্থ্যের সেরাটা দিতে আমরা প্রস্তুত। আমরা সে ভাবেই নিজেদের প্রস্তুত করেছি। সতীর্থদের বলেছি-অবশ্যই মাঠে আমাদের পারফরম করতে হবে। জিমি বলেন, ‘শক্তিশালী এক গ্রুপে পরেছি আমরা। এই নিয়ে আমাদের কোনো ভয় বা শঙ্কা নেই। আমরা আমাদের শক্তিতে বিশ্বাসী। নিজের মাঠে এত বড় একটি টুর্নামেন্টে দেশের জন্য দেশের হকির জন্য প্রত্যেকটি খেলোয়াড় নিজের সেরা নৈপুণ্য প্রদর্শনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’ প্রতিপক্ষ যেই হোক না কেন এশিয়া কাপে আমাদের লক্ষ্য ভালো ফলাফল অর্জন করা। এশিয়া কাপে পুল ‘এ’তে রয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান ও জাপান। আর পুল ‘বি’তে মালেশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, চায়না ও ওমান।