ত্রাণের কথা বলে যুবলীগ নেতার কাছ থেকে প্রতারক চক্র হাতিয়ে নিয়েছে ৮২ হাজার টাকা

158

মঞ্জুরুল আহসান : করোনা পরিস্থিতিতে ত্রাণ দেওয়ার কথা বলে শেরপুর জেলার নালিতাবাড়ী উপজেলা যুবলীগের এক নেতার কাছ থেকে বিকাশে ৮২ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে এক প্রতারক চক্র। এব্যাপারে নালিতাবাড়ী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

নালিতাবাড়ী উপজেলার নয়াবিল ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ভুক্তভোগী নুরুল ইসলাম জানান, প্রতি ইউনিয়ন থেকে দরিদ্র ১০ জন করে লোককে একটি সংস্থার মাধ্যমে নগদ টাকা ও ত্রাণ সামগ্রী দেওয়া হবে বলে জানতে পারেন। তালিকা প্রস্তুত করে নুরুল গত ১৩ ফেব্রুযারি হাজির হন নালিতাবাড়ী উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম এর কার্যালয়ে। একই সময়ে নুরুলের মতো সেখানে উপস্থিত হন যুবলীগের রুকুনুজ্জামান বাচ্চু, আলম, হানিফ সহ আরো ১৫/২০ জন নেতা। ভাইস চেয়ারম্যান আমিনুল উপস্থিত নেতাদের ০১৭৪৯৯৬১৬৬৫ এই মোবাইল নম্বরটি দিয়ে ত্রাণ সহায়তার জন্য জনৈক আকবর আলীর সাথে যোগাযোগ করতে বলেন। পরে আকবর আলীর সাথে অনেকেই যোগাযোগ করেন। আকবর আলী ফরম শেষ হওয়ার কথা বলে এমডির সাথে ০১৭৬৩৩৮৯৫৬২ এই নম্বরে যোগাযোগ করতে বলেন।

জনৈক এমডি নুরুল ইসলামকে বলেন, তাদের ত্রাণ সহায়তার ফরম শেষ হওয়ায় প্রতি ফরমের জন্য ৭শ’ করে টাকা জমা দিয়ে নগদ চার হাজার দুইশ’ টাকা, ৩০ কেজি চাল, ৫ কেজি ডাল, ৫ লিটার তেল ও একটি করে কম্বল পাওয়া যাবে। নিজের স্বার্থের চিন্তা করে ওই টাকার লোভে নুরুল ১০৮টি নামের বিপরীতে ০১৮৫৭৫৯০৫৬৬, ০১৬০৯৫১৪১৭৬, নম্বরে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি দাওধারা কাটাবাড়ি ও চারালি বাজারের দুটি বিকাশের দোকান ও ব্যক্তিগত একাউন্ট থেকে পর্যায়ক্রমে নগদ ৮২ হাজার টাকা প্রেরণ করেন। পরবর্তীতে চক্রের খপ্পরে পরে নুরুল টাকা প্রেরণের পর যোগাযোগের নম্বর গুলো বন্ধ পেয়ে হতাশ হয়ে ভাইস চেয়ারম্যানকে ফোন দিয়ে জানান। ভাইস চেয়ারম্যান তখন নুরুলকে বলেন, তিনি পরে জানতে পারছেন এটি একটি প্রতারক চক্র।

ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আমিনুল ইসলাম জানান, প্রথম দিন মামুন নামে এক ভদ্রলোক তার কার্যালয়ে এসে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির পরিচয় দিয়ে ত্রাণ সহায়তা দেবেন বলে জানান। ভাইস চেয়ারম্যান তার কথা বিশ^াস করেন। পরে তিনি ০১৭৪৯৯৬১৬৬৫ এই নম্বর দিয়ে জনৈক আকবর আলীর সাথে যোগাযোগ করতে বলে চলে যান। আকবর আলীর সাথে কথা হলে তিনি কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের কাছের লোক বলে পরিচয় দিয়ে তালিকা করতে বলেন। কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের কাছের লোক জেনে ভাইস চেয়ারম্যান তাৎক্ষণিক যুবলীগের নেতাদের এই সহায়তা নিতে ১০জন করে অসহায় দরিদ্র ব্যক্তিদের তালিকা নিয়ে তার কার্যালয়ে আসতে বলেন। পরে তিনি উপস্থিত সকলকে প্রতারক আকবর আলীর মোবাইল নম্বরটি দিয়ে যোগাযোগ করতে বলেন। পরদিন যুবলীগের একজন নেতা যখন তাকে ফোন দিয়ে বলেন- উল্লেখিত প্রতারক আকবর আলী ও কথিত এমডি নানা কৌশলে তাদের কাছে ফরমের কথা বলে টাকা দাবি করছেন। তখন তিনি কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের কাছে ফোন দিয়ে জানতে পারেন, এটি একটি প্রতারক চক্র। তাৎক্ষণিক তিনি যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ফয়সাল উদ্দীন সরকারকে জানিয়ে দেন সকলকে সতর্ক করতে। ততক্ষণে প্রতারক চক্র নুরুল ইসলামের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে ৮২ হাজার টাকা। পরে প্রতারকদের উল্লেখিত নম্বরগুলো সম্বলিত থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন নুরুল ইসলাম।

নালিতাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বছির আহমেদ বাদল জানান, অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগটির তদন্তকাজ অব্যাহত রয়েছে।