দক্ষিণ নারায়ণখোলা জামে মসজিদ ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙ্গনে বিলিন হয়েছে

35

গত কয়েকদিনের ভারী বর্ষণ ও বন্যার কারণে ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙ্গনের কবলে পড়ে নকলা উপজেলার চরঅষ্টধর ইউনিয়নের দক্ষিন নারায়ণলা খোলা গ্রামের একটি পাকা মসজিদ, একটি প্রাচীন করবস্থান ও প্রায় ১৫টি পরিবারের বাড়িঘর বিলিন হয়ে গেছে।

নদের ভাঙ্গন অব্যহত থাকায় খুব শীগ্রই, দক্ষিন নারায়ণখোলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনটিও ভাঙ্গনের দার প্রান্তে দাড়িয়ে আছে। প্রতিদিনই নদের পার নতুন করে ভাঙ্গছে, ভাঙ্গন অব্যাহত থাকলে পুরো দক্ষিণ নারায়ণখোলা গ্রামটি নদীগর্ভে বিলিন হয়ে যেতে পারে। নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়ে, জায়গা জমি, সহায় সম্বল ও বাড়ীঘর হারিয়ে এগ্রামের বাসিন্দারা এখন চিন্তায় দিশেহারা, কেউ ভিটে বাড়ী হারিয়ে অনেকে কর্মহীন হয়ে পড়ায় রুটিরুজির অন্নেশ্বনে মানুষের ধারে ধারে ঘুরছেন আবার কেউ কেউ স্কুলের বারান্দায় বা খোলা আকাশের নিচে পরিবার নিয়ে রাত্রিযাপন করছেন। এ নদীর ভাঙ্গনের কবল থেকে রেহাই পেতে হলে এখানে নদী রক্ষা বাধ নির্মাণ করা প্রয়োজন বলে এলাকাবাসী জানান। তা না হলে অব্যাহত ভাঙ্গনে একদিন হয়তবা নকলা উপজেলার মানচিত্র থেকে এ গ্রামটি বিলিন হয়ে যাবে।

ইতি মধ্যেই নদী গর্ভে বিলিন হওয়া “দক্ষিণ নারায়ণখোলা মসজিদ” কমিটি ও দক্ষিন নারায়খোলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন মাষ্টার আবেগাপ্লুত কন্ঠে বলেন, মসজিদটিতো নদী গর্ভে বিলিন হয়েছেই খুবশীগ্রই স্কুলটিও নদীতে বিলিন হবে। স্থানীয় এমপি ও কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে বলে তিনি জানান।