নকলায় জিনের বাদশাহর প্রতারণায় সর্বস্বান্ত দরিদ্র হবিরন

58

মোঃ মোশারফ হোসাইন: গভীর রাতে গ্রামের নিরীহ মানুষকে ফোন দিয়ে ঘুম থেকে জাগিয়ে নিজেকে জিনের বাদশাহ পরিচয় দিয়ে গুপ্তধন পাইয়ে দেয়ার লোভ দেখিয়ে অথবা পরিবারের সদস্যদের মৃত্যুর ভয় দেখিয়ে বিশেষ কায়দায় প্রতারণা করে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

কথিত জিনের বাদশাহর প্রতারণার জালে পড়ে জীবনের সব সঞ্চয় ও ছেলের আয়ের সব টাকা পয়সা হারিয়ে সর্বস্বান্ত হয়েছেন নকলা উপজেলার বানেশ্বরদী ইউনিয়নের বানেশ্বরদী গ্রামের হবিরন বেগম (৫০) নামে এক নারী।

প্রতারণার শিকার অসহায় হবিরন বেগম জানান, ১ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে তার মোবাইল ফোনে একটি ফোন আসে। অপর প্রান্ত থেকে এক ব্যক্তি নিজেকে জিনের বাদশাহ (কোন এক মসজিদের বড় হুজুর) পরিচয় দিয়ে পরিবারের খোঁজ-খবর নেন। কথিত জিনের বাদশাহ হবিরনকে বলেন, ‘আপনি ভাগ্যবতী’, তবে আপনার ছেলে-মেয়েসহ পরিবারের অনেকের বড় ফাঁড়া বা বিপদ আছে। এই ফাঁড়া কাটাতে হলে জিনের মাধ্যমে সামান্য কিছু টাকার একটি চালান দিতে হবে। এ টাকায় জিনের মাধ্যমেই মসজিদের ইমামের জন্য একটি জায়নামাজ কিনা হবে। এতে আপাতত ৭০০ টাকা লাগবে। এই টাকা গুলো না দিলে পরিবারের সদস্যরা বড় ধরনের বিপদের সম্মুখিন হবেন, এমনকি মারাও যেতে পারে। মোবাইলে এমন ভয়ভীতি দেখালে হবিরন বেগম জিনের বাদশাহর বেধে দেওয়া সময়ের মধ্যে প্রতারকের দেওয়া একটি বিকাশ নাম্বারে পরিবারের সবার অজান্তে ৭০০ টাকা পাঠান।

এর পর থেকে ওই প্রতারক জিনের বাদশাহ প্রতি গভীর রাতে ফোন দিয়ে হবিরনের পরিবারের খোঁজ খবর নেন এবং তার কথামত চলতে নির্দেশ দেন। একপর্যায়ে জিনের বাদশা হবিরনকে বলে যে, তার কথা মতো না চললে তার ছেলেসহ পরিবারের সদস্যরা বড় ধরনের বিপদে পড়বেন এবং কেউ কেউ মারা যাবেন। এমন কথাবার্তা শুনে হবিরন বেগম ভয় পেয়ে যায়। সে আবেগের বশে জিনের বাদশার কথা অনুযায়ী কাউকে না জানিয়ে কষ্টার্জিত জমানো অর্থসহ তার ছেলের আয়ের টাকা ও ধারদেনা করে কথিত জিনের বাদশাহর দেয়া বিকাশ নম্বরে চার ধাপে মোট ৮০,৭০০ টাকা পাঠান। এতে করে ওই প্রতারক ও কথিত জিনের বাদশাহর খপ্পরে পড়ে হবিরন বেগম আজ সর্বস্বান্ত এবং নিঃস্ব হয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।

দিশেহারা হবিরন বেগম জানান, সে এব্যাপারে নকলা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। এছাড়াও সিআইডি ও র‌্যাবসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করবেন বলে এমনটাই জানান।

Advertisement
Print Friendly, PDF & Email
sadi