নকলা পৌরশহরে সৌরবাতিতে রাস্তার অন্ধকার দূর

40

লোডশেডিংয়ের অন্ধকার থেকে বাঁচাতে শেরপুরের নকলা উপজেলা শহরকে সৌরবিদ্যুৎ চালিত বাতির আওতায় আনা হয়েছে। মূল উপজেলার শহরটির প্রধান প্রধান সড়কের ১০৫টি ল্যাম্পপোস্টে সৌরপ্যানেল যুক্ত বাতি লাগানো হয়েছে। যার ফলে এখন লোডশেডিংয়ে বাড়ীঘর অন্ধকার থাকলেও অন্তত রাস্তা থাকবে আলোকিত।

পৌর এলাকার রাস্তাগুলোর নিরাপত্তার স্বার্থে এগুলো অত্যন্ত কার্যকর বলে জানান পৌর মেয়র হাফিজুর রহমান লিটন। তিনি জানান, বিদ্যুৎ চলে গেলে এখন আর মানুষকে আলো স্বল্পতার জন্য কোন সমস্যায় পড়তে হবে না। বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার সাথে সাথে ওইসব ল্যাম্পপোস্টের বাতিগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে জ্বলে উঠে।’

পৌর এলাকায় চুরিসহ বিভিন্ন অপরাধ বন্ধে এবং জানমালের নিরাপত্তার স্বার্থে গত সপ্তাহে দুইটি টিআর প্রকল্পের ২৪ মেট্রিকটন চালের সমমূল্যে শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সোলার প্যানেল সংযুক্ত ২০টি ল্যাম্পপোস্ট স্থাপন করা হয়। এখন বাজারের আরও ১০৫ ল্যাম্পপোস্টের সাথে সোলার সিস্টেম চালু হওয়ায় বাড়তি নিরাপত্তার আওতায় এলো এলাকা।

তথ্যমতে, ২০০১ সালে গঠিত হওয়া প্রায় ১৯বর্গ কিলোমিটার আয়তন বিশিষ্ট সদ্য ঘোষিত দ্বিতীয় শ্রেণিতে উন্নতি হয়। পৌর এলাকায় রয়েছে ৬টি বানিজ্যিক ব্যাংকের শাখা, ১টি ফাজিল মাদরাসা, ১টি আলীম ও ২টি দাখিল মাদরাসা; ৪টি মাধ্যমিক স্কুল, ৩টি কওমী মাদরাসা, ২-৩টি হাফেজিয়া মাদরাসা ও এতিমখানা, ৮টি কিন্ডারগার্টেন স্কুল, ১৪-১৫টি মসজিদসহ রয়েছে অসংখ্য সরকারি-বেসরকারি অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। কিছু দিন আগেও লোডশেডিং চলাকালে পৌর এলাকায় বিশেষকরে বাজারে কয়েকদিন অন্তর চুরিসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড ঘটতো। লোডশেডিংয়ের সময় এমন অনাকাঙ্খিত ঘটনা থেকে রেহাই পেতে এবং জন চলাচলের সুবিধার্থে লোডশেডিংয়ের সময় আলো নিশ্চিত করতে ২০টি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে সোলার বাতি সংযুক্ত ল্যাম্পপোস্ট স্থাপনের পরে বাজারের আরও ১০৫ ল্যাম্পপোস্টের সাথে সোলার সিস্টেম চালু করা হলো। তাছাড়া টিআরের টাকায় ইতোমধ্যে পৌরভবনের সব অফিস কক্ষে, নকলা মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ও পৌর জামে মসজিদকে সম্পূর্ণভাবে সোলার সিস্টেমের আওতায় আনা হয়েছে।

আকাশ সোলারের সেলস্ এন্ড টেকনিক্যাল ম্যানেজার হাফিজুল হাসান জানান, পুরু বাজারকে আলোকিত রাখতে পৌরসভা ভবনের ছাদে ৩ হাজার ওয়াটের সৌর প্যানেল বসানো হয়েছে। শুধুমাত্র আগের লাইনের সাথে সোলারের লাইন সংযোগ করে দেওয়া হয়েছে। বিদ্যুৎ চলে গেলে সয়ংক্রিয়ভাবে লাইট গুলো জ্বলে উঠবে।

নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খাঁন আব্দুল হালিম সিদ্দিকী বলেন, এর পরেও কোন চুরি, ছিনতাই বা যেকোন অপরাধমূলক কর্মকান্ড হলে অপরাধী সনাক্ত করে দ্রুত আইনের আওতায় এনে তা নির্মূল করা হবে।

পৌরসভার মেয়র হাফিজুর রহমান লিটন জানান, শহরে সোলার লাইট ও সৌর প্যানেল স্থাপন করায় বিভিন্ন অপরাধের মাত্রা কমে গেছে। আগামী অর্থ বছরে শুধু শহর নয় সারা পৌর এলাকার সব ল্যাম্পপোস্টগুলো সোলার সিস্টেমের আওতায় আনা হবে।