নালিতাবাড়ীতে দোকান বন্ধ করতে বলায় গ্রাম পুলিশের বুকে ঘুষি

385

মঞ্জুরুল আহসান : লকডাউনকে কেন্দ্র করে দোকান বন্ধ করতে বলায় শেরপুর জেলার নালিতাবাড়ী উপজেলার পোড়াগাঁও ইউনিয়নের এক গ্রাম পুলিশকে শার্টের কর্লারে ধরে বুকে ঘুষি দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন এক চা দোকানী। এ ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান ও নালিতাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কে অবহিত করেন ওই গ্রাম পুলিশ। ২৯ জুলাই বৃহস্পতিবার সকালে পোড়াগাঁও ইউনিয়নের মধুটিলা ইকোপার্কের সম্মুখে একত্রিত হয়ে ৯ জন গ্রাম পুলিশ ও একজন দফাদার তাদের সহপাঠীকে অপমান করার কারণে এই অপরাধকারীর শাস্তি দাবী করেছেন।

গ্রাম পুলিশ হাবিবুর রহমান (৫৫) জানান, ২৮ জুলাই বুধবার বিকেলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সঞ্চিতা বিশ্বাস কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে ইকোপার্কের সম্মুখে অবস্থান করেন। এসময় আশপাশের দোকানদার তাদের দোকান বন্ধ করে দেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কিছুক্ষণ পর ওই স্থান ত্যাগ করেন। পরক্ষনেই চা দোকানী নূরল আমীন (৩২) তার দোকান আবার খুলে বসেন। এসময় পূর্ব সমশ্চূড়া গ্রামের মৃত মইজ উদ্দীনের ছেলে গ্রাম পুলিশ হাবিবুর রহমান তাকে দোকান বন্ধ করতে অনুরোধ জানান। দোকান বন্ধ করতে বলায় গ্রাম পুলিশের উপর চড়াও হন একই গ্রামের মৃত সোবহানের ছেলে চা দোকানী নূরল আমীন অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করেন। এক পর্যায়ে গ্রাম পুলিশের গায়ে থাকা সরকারী পোশাক এর শার্টের কর্লারে ধরে বুকে একটি ঘুষি দেন। এঘটনায় গ্রাম পুলিশের ছেলে লাঠি হাতে নিয়ে ওই দোকানীর উপর চড়াও হয়। এতে উভয় পক্ষ উত্তেজিত হলে স্থানীয়রা উভয়পক্ষকে ফিরিয়ে দেন।

ইউপি সদস্যসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা রাতেই ঘটনাটি নিষ্পত্তি করার চেষ্টা করেন। বিষয়টি পোড়াগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও নালিতাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কে অবহিত করা হয়। পরদিন বৃহস্পতিবার এঘটনা নিষ্পত্তি হওয়ার দিন ধার্য হয়। এদিকে বৃহস্পতিবার বিকেল পর্যন্ত বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য পার্কের সম্মুখে অপেক্ষা করেন ইউপি চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি গোলাম রব্বানী অপু ও গ্রামপুলিশ সদস্যরা। এ সময় চা দোকানী নূরল আমীনের স্ত্রীর ভাই পোড়াগাঁও ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সাবেক সদস্য মুনছুর আলী দায়িত্ব নেন বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য।

মুনছুর আলী ঘটনাটির সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এই ঘটনাটি আমার ভগ্নিপতি ভুল করেছে। এই ঘটনার সুন্দর একটি ফয়সালা দিবেন বলে তিনি জানান।

নূরল আমীন, ত্রিফলা কোচ, আবুল কাশেম, শেখ ফরিদ, সুলতান মিয়া, উম্মে কুলসুম সহ পোড়াগাঁও ইউনিয়নের সকল গ্রামপুলিশ ওই ঘটনার বিচার দাবি করেন।

নালিতাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বছির আহমেদ বাদল ঘটনার বিষয়টি অবগত হয়েছেন এবং আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে তিনি জানান।

Advertisement
Print Friendly, PDF & Email
sadi