‘পারসোনাল কাজ নিয়ে বেশ ব্যস্ত আছি’

48

চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় মুখ শাবনূর। ঢাকাই চলচ্চিত্রে অসংখ্য জনপ্রিয় ছবি তিনি দর্শকদের উপহার দিয়েছেন। বর্তমানে চলচ্চিত্রে একেবারেই অনুপস্থিত থাকলেও নতুন পরিচয়ে দর্শকের সামনে আসছেন তিনি। চলচ্চিত্রে শুধু অভিনয় না পরিচালনা করতে যাচ্ছেন তিনি। গত ঈদের পর অস্ট্রেলিয়া থেকে দেশে ফিরেছেন এ অভিনেত্রী। নতুন কাজের বিষয়ে শাবনূর মানবজমিনকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে বিষয়টি নিয়েই ভেবেছি। সেটা হচ্ছে শুধু চলচ্চিত্রে অভিনয় না, এবার পরিচালনাও করবো। সেটা হবে স্বপ্নের একটা প্রোজেক্ট। নিজে ছবির কাহিনীটা লেখার বিষয়েও ভাবছি। সে সঙ্গে ছবির চিত্রনাট্যও আমিই করবো বলে পরিকল্পনা করেছি। বর্তমান সময়টা ছবি নির্মাণের জন্য উপযুক্ত না। তাই আমি একটু সময় নিয়ে বুঝে শুনে নির্মাণে হাত দিতে চাই। এদিকে, দীর্ঘদিন ধরেই ঢাকা টু সিডনি (অস্ট্রেলিয়া) নিয়েই তার ব্যস্ততা। বছরের বেশিরভাগ সময় অস্ট্রেলিয়াতে থাকেন তিনি। তবে এবার সহজে সেখানে যাচ্ছেন না বলে জানালেন। কারণ বেশ আটঘাট বেঁধেই পরিচালনায় নামতে চাচ্ছেন তিনি। ঢাকার প্রেক্ষাগৃহে শাবনূর অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত ছবিটি হচ্ছে মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘কিছু আশা কিছু ভালোবাসা’। সবশেষ গত বছর শাবনূর দু ধাপে অস্ট্রেলিয়া থেকে দেশে ফিরেছেন। এর মধ্যে ‘ইউরো স্টার’ নামে একটি কোম্পানীর চুলার বিজ্ঞাপনচিত্রে মডেল হিসেবে কাজ করেন। এটি নির্দেশনা দেন আহমেদ ইলিয়াস। তার নির্দেশনায় নতুন বিজ্ঞাপনচিত্রে কাজ করার কথা রয়েছে শাবনূরের। এদিকে নতুন কাজের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘এত প্রেম এত মায়া’ নামের ছবিতে কাজ করবো। এ ছবিতে গান গাইতেও দেখা যাবে আমাকে। তবে আমি তা চাইনি। পরিচালক জোর করেছেন। দেখি এখন প্র্যাকটিস করছি। সবঠিক থাকলে সামনের সপ্তাহে প্লেব্যাক করব। তারপর শুটিং শুরু করবো। বর্তমানে নিয়মিত ব্যায়াম করছেন শাবনূর। নিজের ওজনও কমিয়েছেন। সে সূত্রে বলা যায় সামনে নতুন ছবিতে নতুন এক শাবনূরকে দেখা যাবে। আজকের আলাপনে সাম্প্রতিক চলচ্চিত্রের অবস্থা, যৌথ প্রযোজনার ছবি, শাকিব খান ইস্যু, নিজের কাজের পরিকল্পনাসহ বেশকিছু বিষয়ে কথা বলেছেন এ অভিনেত্রী। বিশেষ করে কয়েকদিন আগে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ১৮ সংগঠনের পক্ষ থেকে ঢালিউডের শীর্ষনায়ক শাকিব খানকে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি শুনেছেন তিনি। এ প্রসঙ্গে তার মতামত জানতে চাইলে বলেন, শাকিব তো কাজ করে যাচ্ছে। ঘরে বসে নেই। আমি যতটুকু জানি তাতে মনে হয়েছে যে, কাজ করতে গিয়ে মানুষের ভুল ত্রুটি হতেই পারে। সিনিয়র যারা আছেন তাদের সঙ্গে বসে এসব ঠিকঠাক করে নেয়া উচিত। কারণ আমরা শিল্পীরা মিলেমিশে কাজ না করলে তো চলবে না। এখানে রেষারেষি করে লাভ নেই। ভালো কাজ যে করুক না কেনো তাকে উৎসাহ দেয়া উচিত। যে কোনো সমস্যা পরিচালক, প্রযোজক ও শিল্পীরা মিলে সমাধান করে নেয়া যায়। কারণ সবাই মিলেই তো একটা টিমওয়ার্ক। সবশেষে নিজের বর্তমান সময়ের ব্যস্ততার কথা জানতে চাইলে শাবনূর হাসি ভরা মুখে বলেন, পারসোনাল কাজ নিয়ে বেশ ব্যস্ত আছি। এসব কাজ শেষ না করে ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতে পারছি না। আর ছেলে আইজানকে এখনো অনেক সময় দিতে হয়। তারপরও আমি কাজে খুব শিগগিরই ফিরবো বলে মনস্থির করেছি। খুব দ্রুতই কাজ শুরু করবো।