ব্রিজ বিশ্বকাপেও ভালো সম্ভাবনা বাংলাদেশের

24

বাংলাদেশের কয়টা খেলার সুযোগ হয় বিশ্বকাপে যাওয়ার! ক্রিকেট, কাবাডি বা হালে রোলার স্কেটিংয়ের নাম বলে থামতে হবে। দাবা অলিম্পিয়াডে দলগতভাবে খেলে বাংলাদেশ। বিশ্ব দাবা চ্যাম্পিয়নশিপে ব্যক্তিগতভাবে বাংলাদেশের খেলোয়াড়েরা সুযোগ করে নেন অনেক সময়ই। এ ছাড়া বিশ্বকাপের বাছাই খেলার সুযোগও মেলে। কিন্তু চূড়ান্ত পর্বে যাওয়ার সামর্থ্য নেই ফুটবলসহ জনপ্রিয় আরও অনেক খেলারই। তাই বাছাই পেরিয়ে যে কোনো খেলার মূল বিশ্বকাপে পা রাখতে পারা বলার মতো ঘটনাই। সেই কাজটা করেছে ব্রিজ। এখন তারা প্রস্তুতি নিচ্ছে অংশ নেয়ার। আগামী ১২-২৬ আগস্ট ফ্রান্সের লিঁওতে ২২ দলের ৪৩তম ব্রিজ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো খেলবে সরাসরি। যারা খেলবেন সবাই নিজ নিজ পেশায় ব্যস্ত এবং দেশের স্বনামধন্য ব্যক্তি। এসব সামলেও তারা ব্রিজ খেলেন নিয়মিত। খেলতে খেলতেই আজ বিশ্ব দরকারে যাচ্ছেন সাজিদ ইস্পাহানী, শাহ জিয়াউল হক, রাশেদুল আহসান নাঈম, মশিউর রহমান সুমন, আশিকুর রহমান চৌধুরী ও এএইচএম কামরুজ্জামান সোহাগ। সঙ্গে ডেলিগেট হিসেবে যাচ্ছেন ব্রিজ ফেডারেশনের সভাপতি মুশফিকুর রহমান মোহন।
দুই বোর্ডে দু’দেশের চারজন করে আটজন খেলোয়াড়। এক দেশের চারজন দুই বোর্ড থেকে ক্রস পদ্ধতিতে খেলে থাকেন। আরও দু’জন দুই বোর্ডে অবজারভেশনে থাকেন। তাদের হাতে তাসের পসরা। একে অন্যের হাতের দিকে তাকিয়ে থাকেন। ভালো পেয়ার কার কাছে সেদিকেই নজর। কখন যে কি হয় বলা যায় না। কে কাকে কখন টেক্কা দেয় কে জানে। নিবিষ্ট মনে সেই ভাবনা। সময় বয়ে যায়। দুই বোর্ডের একটি রাউন্ড খেলতে ১৩ মিনিট সময় লাগে। ২৪ থেকে ২৬ বোর্ডে শেষ হয় খেলা। এর নাম ব্রিজ।
গত এপ্রিলে দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত হয় ব্রিজ ফেডারেশন এশিয়া অ্যান্ড মিডল ইস্ট অঞ্চলের বাছাই পর্বের খেলা। যেখানে অংশ নেয় ভারত, পাকিসস্তান বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, জর্ডান, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও নেপাল। লীগ পর্বে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে খেলে সেমিফাইনালে ওঠে বাংলাদেশ। সেখানে পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনালে পৌঁছে বাংলাদেশ। যদিও ফাইনালে ভারতের কাছে হার মেনে রানার্সআপ হয় লাল-সবুজের ব্রিজ দল।
১১টি অঞ্চলের চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ মোট ২২টি দল খেলবে ব্রিজ বিশ্বকাপে। এশিয়া অ্যান্ড মিডল ইস্ট অঞ্চলের রানার্সআপ দল হিসেবে খেলছে বাংলাদেশ।
বাংলাদেশ ব্রিজ ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল কুদ্দুস জানান, ‘যোগ্যতর দল হিসেবেই বাংলাদেশ ব্রিজ বিশ্বকাপে খেলছে। ফ্রান্সের লিওতে লাল সবুজের পতাকা নিয়ে লড়বেন আমাদের খেলোয়াড়রা। এটাই আমাদের বড় পাওয়া। এই দলটির জন্য সবার কাছে আমি দোয়া চাই।’ তিনি যোগ করেন, ‘ব্রিজ হলো মেধার খেলা। সারা বিশ্বে এটা ব্যাপক জনপ্রিয়। কিন্তু আমাদের দেশে তাস বলতেই সাধারণ মানুষ ধারণা করে এর সঙ্গে জুয়ার সম্পর্ক রয়েছে। আসলে তাসের সঙ্গে যদি জুয়ার সম্পৃক্ততা বন্ধ রাখা যায়, তাহলে অনেক প্রতিভাবান খেলোয়াড়ের জন্ম হবে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তারা দেশের জন্য সুনাম বয়ে আনতে পারবে।’