মিয়ানমারকে সমর্থন দেয়ার কথা জাতিসংঘ মহাসচিবকে জানিয়ে দিল চীন

31

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টনিও গুতেরাঁর সঙ্গে বৈঠকেও মিয়ানমারের প্রতি সমর্থনের কথা জানিয়ে দিয়েছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই। তিনি বলেছেন, জাতীয় স্থিতিশীলতায় মিয়ানমারের প্রচেষ্টার বিষয়টি বুঝতে পারে চীন এবং এ প্রচেষ্টায় সমর্থন রয়েছে চীনের। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এপি। এতে বলা হয়, নিউ ইয়র্কে গুতেরাঁর সঙ্গে বৈঠকে মিয়ানমার ইস্যুতে চীনের অবস্থান পরিস্কার করে দিলেন ওয়াং ই। এর আগেও চীন তার অবস্থান পরিস্কার করে দেয় রোহিঙ্গা ইস্যুতে। তারা জানিয়ে দিয়েছিল, রাখাইনে মিয়ানমার সরকার শান্তি ও স্থিতিশীলতা ফেরাতে যে তৎপরতা চালাচ্ছে তাতে চীনের সমর্থন রয়েছে। আর এবার সরাসরি জাতিসংঘ মহাসচিবকে সেই কথাই জানিয়ে দেয়া হলো। এর আগে খবর প্রকাশ হয়েছিল যে, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতার প্রতিবাদে বিশ্ব সোচ্চার হয়ে উঠলে, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে রোহিঙ্গা ইস্যু উত্থাপনের দাবি জোরালে হলে মিয়ানমার দূতিয়ালি শুরু করে। তারা চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করে। নিরাপত্তা পরিষদের এ সদস্যদের তারা ম্যানেজ করার চেষ্টা করে, যাতে জাতিসংঘে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়ার চেষ্টা হলে তাতে তারা বাধা দেয়। নিরাপত্তা পরিষদে শক্তিধর অবস্থানে রয়েছে চীন ও রাশিয়া। তারা কোনো একটি প্রস্তাবে ভেটো দিলেই তা আর আলোর মুখ দেখার সম্ভাবনা ক্ষীণ। তাই এ দুটি দেশকে হাতে নেয়ার চেষ্টা চালায় মিয়ানমার। এ ছাড়া এ দুটি দেশ মিয়ানমারে বড় অংকের অর্থের অস্ত্র বিক্রি করে। ফলে তাদেরও এক্ষেত্রে স্বার্থ আছে। দৃশ্যত মিয়ানমারের সেই দুতিয়ালি কাজে লেগেছে। তারই প্রতিফলন ঘটেছে গুতেরাঁকে চীনের অবস্থান পরিস্কারের মাধ্যমে। ২৫ শে আগস্ট থেকে রাখাইনে সহিংসতার পর চার লাখ ১০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে চলে এসেছেন। তাদের ওপর যে নির্যাতন চালানো হয়েছে জাতিসংঘ তাকে জাতি নিধন বলে অভিহিত করেছে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

সূত্র : মানবজমিন অনলাইন পত্রিকা