রাজধানীর জলাবদ্ধতা দূর করতে বক্স কালভার্ট খুলে দেয়ার নির্দেশ

30

রাজধানীর জলাবদ্ধতা দূর করতে যেসব খালগুলোর ওপরে বক্স-কালভার্ট রয়েছে তা খুলে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে নদী খননের জন্য ভারী ড্রেজিং মেশিন ব্যবহারের জন্য চিন্তা-ভাবনা করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। গতকাল মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। বৈঠক শেষে একাধিক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে আলোচনার সময় জলাবদ্ধতার বিষয়টি উঠে আসে। একটি জাতীয় দৈনিকে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে ইউনেস্কোর অবস্থানের বিষয়ে প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু মন্ত্রিসভাকে বলেন, পত্রিকায় ইউনেস্কোর অবস্থান সম্পর্কে যেভাবে এসেছে বিষয়টি ওইরকম নয়। তারা সুন্দরবন এলাকায় শিল্প কারখানা স্থাপনের বিষয়ে কিছু শর্তের কথা বলেছে। বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে তারা কিছু বলেনি। অনির্ধারিত আলোচনায় নদী খননের বিষয়ে নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান বলেন, আমরা যে ড্রেজার মেশিন দিয়ে নদীতে কাজ করি সেগুলো ছোট। এতে অনেক সময় ব্যয় হয়। এছাড়া খনন কাজও বেশি করা সম্ভব হয় না। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নদী খননের জন্য ভারী ড্রেজার মেশিন ব্যবহার করা হয়। কিন্তু ওই সব মেশিন বেশ ব্যয়বহুল। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ভারী ড্রেজার মেশিন দামি এবং খরচ বেশি হলেও আমাদের এটা নিয়ে চিন্তা করতে হবে। দেশের বড় বড় নদীগুলো দ্রুত খনন করার কোন বিকল্প নেই। ব্রক্ষপুত্র নদ এভাবে খনন করতে পারলে ভাল হয়। এ নদীর বালু বিদেশিরা কিনবে। এ ব্যাপারে নৌ-পরিবহন মন্ত্রী, স্থানীয় সরকার মন্ত্রী এবং পানি সম্পদ মন্ত্রীকে চিন্তাভাবনা করতে বলেন প্রধানমন্ত্রী। এক সিনিয়র মন্ত্রী জানান, নদী খনন নিয়ে আলোচনার সময় ঢাকার সাম্প্রতিক জলাবদ্ধতার প্রসঙ্গ উঠে আসে। তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, জিয়া ও এরশাদ সরকারের আমলে ঢাকার সব খাল ভরাট করে ফেলা হয়েছে। অপরিকল্পিতভাবে খাল ভরাট করে বক্স কালভার্ট দিয়ে রাস্তা তৈরি করা হয়েছে। এসব বক্স- কালভার্টের ভেতর দিয়ে পানি ঠিকভাবে বের হতে পারে না। কারণ বক্স-কালভার্টের ভেতরে ময়লা আবর্জনা জমে জমাট হয়ে থাকে। তিনি বলেন, এজন্য বক্স-কালভার্টগুলো উন্মুক্ত করে দিতে হবে। এগুলোর দুই অংশ বাধাই করে দিলে ময়লা-আবর্জনা জমতে পারবে না। ময়লা-আবর্জনা জমা হলে বাইরে থেকে সেটা দেখা যাবে। তখন ওই ময়লা দ্রুত পরিষ্কার করে ফেলা যাবে। আর বক্স-কালভার্টের ওপরের রাস্তায় খালের দুই পাড়ে পিলার দিয়ে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে করে দেয়া যেতে পারে। এ সময় প্রধানমন্ত্রী বিশ্বের বিভিন্ন দেশে খালের উপর এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে থাকার চিত্র তুলে ধরেন। নিজের কম্পিউটার মনিটরে খালের উপর দৃশ্যমান দুই-একটি দেশে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে থাকার চিত্র মন্ত্রিসভার সদস্যদের দেখান। বলেন, ঢাকার খালগুলোর সঙ্গে নদীর সংযোগ রয়েছে। এটা করা হলে পানি দ্রুত এবং সহজে বয়ে যেতে পারবে। এ বিষয়ে উদ্যোগ নিতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রীকে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।