রোহিঙ্গাদের দুর্ভোগ অবসানের আহ্বান

36

বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের দুর্ভোগের ইতি ঘটাতে ব্যক্তিগতভাবে আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের অভিবাসী বিষয়ক সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আইওএম) – এর মহাপরিচালক উইলিয়াম লেসি সুইং। বার্তা সংস্থা সিনহুয়া এ খবর দিয়েছে। এতে বলা হয়, আইওএমের হিসাবে বাংলাদেশের কক্সবাজারে ভয়াবহ মানবিক অবস্থায় বসবাস করছেন নতুন করে আসা কমপক্ষে ৫ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী। আইওএম এ কথা বলার পরেই উইলিয়াম লেসি সুইং ওই আহ্বান জানিয়েছেন। আইওএম বলেছে, ২৫ শে আগস্ট থেকে দ্রুততার সঙ্গে ও ব্যাপক মাত্রায় এসব রোহিঙ্গা প্রবেশ করতে থাকে বাংলাদেশে। তারা রাখাইনে সৃষ্ট সহিংসতা থেকে বাঁচতে হাজারে হাজারে ছুটে আসে বাংলাদেশে। এতে ভয়াবহ এক মানবিক জরুরি অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। উইলিয়াম লেসি বলেছেন, বিশ্ব শুধু রোহিঙ্গাদের দুর্দশার ভয়াবহ চিত্র, তাদের ওপর হত্যাযজ্ঞ, ধর্ষণ ও অগ্নি সংযোগের কাহিনী জেনে প্রতিক্রিয়াই দিচ্ছে। কিন্তু এই ভয়াবহতা মোকাবিলা করতে হলে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে পদক্ষেপ নিতে হবে, কারণ, আমরা সীমান্তের দু’পাশেই ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেতে চাই। তিনি আরো বলেন, এই মানবিক সঙ্কট মোকাবিলার জন্য এখন থেকে ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১২ কোটি ডলার সহায়তার আহ্বান জানাচ্ছে আইওএম। যদি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই টার্গেট পূরণ করতে না পারে তাহলে শরণার্থীদের পরিণতি হবে পীড়াদায়ক। জরুরি ভিত্তিতে আশ্রয়, খাদ্য নয় এমন ত্রাণ সামগ্রি, পয়ঃনিষ্কাশন সহ বিভিন্ন কাজে এই অর্থ প্রয়োজন। যদি এ চাহিদা পূরণ করা না যায় তাহলে রোহিঙ্গা পরিবারগুলোকে অপর্যাপ্ত প্লাস্টিকের শিটের নিচে ভারি বৃষ্টি উপেক্ষা করে উন্মুক্ত অবস্থায় দুর্ভোগ পোহাতে হবে। পরিষ্কার পানি ও পয়ঃনিষ্কাশনে ঘাটতি থাকলে তাতে কলেরা সহ পানিবাহিত রোগের প্রকোপ দেখা দিতে পারে। এরই মধ্যে মলমূত্র মিশে গেছে পানিতে।

 

 

 

 

 

 

 

সূত্র : মানবজমিন অনলাইন পত্রিকা