শুরুতেই আবাহনীর ভয় পাওয়া জয়

32

গত মৌসুমে শেখ জামালের জার্সি গায়ে মাঠ মাতিয়েছেন এমেকা ডারলিংটন। নাইজেরিয়ান এই ফরোয়ার্ড এবার নাম লিখিয়েছেন ঢাকা আবাহনীতে। তার জোড়া গোলে সাইফ পাওয়ার ব্যাটারি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে স্বস্তির জয় পেয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। আক্রমণ পাল্টা আক্রমণের ম্যাচে শুরুতেই ২ গোলের লীড পায় ঢাকা আবাহনী। ৪৫ থেকে ৪৯ এই চার মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল শোধ করে সাইফ ম্যাচ জমিয়ে তোলে। তবে শেষ পর্যন্ত তা ধরে রাখতে পারেনি নবাগত ক্লাবটি। লীগ শুরুর ম্যাচে ঢাকা আবাহনীর বুকে কাঁপন ধরিয়েও তারা হেরেছে ৩-২ গোলে। আবাহনীর হয়ে ডারলিংটন দুটি ও নাসির একটি গোল করেন। সাইফের গোল দুটি এসেছে তপু বর্মন ও জুয়েল রানার পা থেকে। ফেডারেশন কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে এই দুই দলের লড়াইটা শেষ হয়েছিল ১-১ গোলে। ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় উদ্বোধন করেন দেশের এ শীর্ষ ফুটবল লীগের।
স্পন্সরদের চেষ্টা ছিল। নতুন চ্যানেল বাংলাটিভিও আধুনিকত্বের চেষ্টা করেছে তাদের সম্প্রচারে। মাঠের খেলায়ও পরিবর্তন লক্ষ্য করা গেছে দু’দলের ফুটবলাররা মাঝে। গোলের খেলা ফুটবলে গোলও হয়েছে পাঁচটি। ম্যাচের ২৮ মিনিটের মধ্যে এমেকার জোড়া গোলে ২-০ গোলের লীড পায় পাঁচ বারের চ্যাম্পিয়ন ঢাকা আবাহনী। মাত্র পাঁচ মিনিটের ব্যবধানে জোড়া গোল করে ম্যাচে সমতায় ফেরে সাইফ। মাঝের সময়টুকুতে আবাহনীর উপর চাপও সৃষ্টি করেছিল প্রিমিয়ার লীগের নবাগত এই ক্লাবটি। রহমত মিঞা, রহিমুদ্দিন, জুয়েল রানা, আল আমিনের মতো তরুণ ফুটবলাররা লীগের শুরুর ম্যাচেই নজর কেড়েছেন। তবে শেষ পর্যন্ত আবাহনী অভিজ্ঞ নাসিরউদ্দিন চৌধুরী, ওয়ালি ফয়সাল, ইমন বাবুদের অভিজ্ঞতার কাছে কুলিয়ে উঠতে পারেনি তারা।
এদিন ম্যাচের ৪ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো ঢাকা আবাহনী। বামদিক থেকে ওয়ালী ফয়সালের সেটপিস বক্সে জটলার মধ্যে থেকে এমেকা ডারলিংটনের টোকা পোস্টের নিশানায় থাকেনি। তবে দলকে এগিয়ে নিতে বেশি সময় নেননি এই নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড। ম্যাচের বয়স তখন ২১ মিনিটে। ঠিক ওই সময়ে রুবেল মিয়ার শট কর্নার থেকে ওয়ালী ফয়সালের ক্রস এমেকার মাপা হেড সরাসরি জালে (১-০)। ২৮ মিনিটে রহমত মিয়া বক্সে সাদ উদ্দিনকে ট্যাকল করে পেনাল্টির বিপদ ডেকে আনেন সাইফের তরুণ ডিফেন্ডার রহমত মিঞা। পেনাল্টি থেকে গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সেই এমেকা (২-০)। ৪২ মিনিটে স্কোরলাইন ৩-০ করার সূবর্ণ সুযোগ নষ্ট করেন এমেকা ডারলিংটন। বক্সের বাইরে থেকে পোস্টে শট না নিয়ে ওয়ালী ফয়সাল বল বাড়ান ডানদিকে, সোহেল রানার কাছে। এ মিডফিল্ডারের শট পোস্টের হাত দূরত্বে থেকেও বলে পা ছোঁয়াতে পারেননি দীর্ঘকায় নাইজেরিয়ান। প্রথমার্ধের যোগকরা সময়ে ডানদিক থেকে রহিমুদ্দিনের চমৎকার ক্রস থেকে ভেলেন্সিয়ার হেড বাইরে যায়। বিরতির আগেই অবশ্য ব্যবধান কমায় প্রিমিয়ার লীগের নবাগত ক্লাবটি। ডানদিক থেকে জামাল ভূঁইয়ার ফ্রি-কিক বক্সের মধ্যে থেকে হেডে ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হন রায়হান হাসান। পরবর্তীতে এক সতীর্থের মাথা ঘুরে আসা বল হেডে জালে পাঠান তপু বর্মণ (২-১)। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই হেমন্ড ভিনসেন্টের বদলি হিসেবে মাঠে নামেন জুয়েল রানা। ম্যাচে ৪৯ মিনিটে তার অসাধারণ এক গোলে সমতায় ফেরে সাইফ (২-২)। রহিমউদ্দিনের ক্রসে দারুণ এক হেড করেন জাতীয় দলের এই উইংগার।। ৫৩ মিনিটে ওয়ান টু ওয়ানে গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে ব্যর্থহন আবাহনীর তরুণ ফরোয়ার্ড সাদউদ্দিন। এরপরও আবাহনীকে চেপে ধরে সাইফ স্পোটিঁং ক্লাব। তাদের একের পর এক আক্রমণে দিশাহারার আবাহনীর রক্ষণভাগের ত্রাণকর্তার ভূমিকা পালন করেন দলটির ঘানার ফরোয়ার্ড সাদাম ইউসুফ। উল্টো ম্যাচের ৮৪ মিনিটে আবারও এগিয়ে যায় ঢাকা আবাহনী। রায়হানের লম্বা থ্রো ক্লিয়ার করতে চেয়েছিলেন সাইফের ডিফেন্ডারর রহমত মিয়া। কিন্তু দুর্ভাগ্য বশত বল পেয়ে যান আবাহনীর ডিফেন্ডার নাসিরউদ্দিন চৌধুরী। অভিজ্ঞ এই ডিফেন্ডারের হেডে ৩-২ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে গেলো বারের চ্যাম্পিয়নরা।
আজকের খেলা
ব্রাদার্স-বিজেএমসি (বিকেল ৫.০০ মি.)
শেখ জামাল-মোহামেডান (সন্ধ্যা ৭.১৫ মি.)
সব ম্যাচ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে