শেখ জামালে ধরাশায়ী শেখ রাসেল

31

আগের দু’টি ম্যাচের দু’টিতেই জয় পেয়েছে দু’দল। গতকাল শেখ জামাল-শেখ রাসেলের ম্যাচটি ছিলো এগিয়ে যাওয়ার। সাইফ পাওয়ার ব্যাটারি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে এগিয়ে যাওয়ার ম্যাচে পিছিয়ে পড়ার পর খালেকুজ্জামান সবুজের গোলে সমতায় ফিরে শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। কিন্তু শেষ মুহূর্তে সলোমন কিংয়ের টানা তৃতীয় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ল শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার শেখ জামালের জয়টি ২-১ গোলের। মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবকে ২-০ ব্যবধানে হারিয়ে শুরু করা জোসেফ আফুসির দল দ্বিতীয় ম্যাচে বিজেএমসি’র বিপক্ষে জিতেছিল ১-০ গোলে। চলতি লীগে প্রথম হারের স্বাদ পেলো শেখ রাসেল। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রকে ৩-০ ব্যবধানে উড়িয়ে দেয়া দলটি দ্বিতীয় ম্যাচে ব্রাদার্স ইউনিয়নের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছিল।
টানা দুই জয়ের আত্মবিশ্বাস নিয়ে এদিন মাঠে নামা শেখ জামাল নবম মিনিটে এগিয়ে যায়। ডান দিক থেকে এনামুল হকের কর্নারে গাম্বিয়ার ফরোয়ার্ড মোমোদু বাহর হেড ড্রপ খেয়ে ঠিকানা খুঁজে পায় (১-০) চার মিনিট পর ব্যবধান দ্বিগুণ হতে পারত। বাঁ দিক থেকে এনামুলের কর্নার দূরের পোস্টে থাকা রাফায়েল ওডোইনের হেড অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট। একটু পর এনামুলের ফ্রি কিক গ্লাভসের আলতো ছোঁয়ায় কর্নারের বিনিময়ে ফেরান জিয়াউর রহমান। একপেশে প্রথমার্ধে শেখ জামাল ব্যবধান দ্বিগুণের একাধিক সুযোগ হারায়। ২২তম মিনিটে গোলরক্ষকের দৃঢ়তায় লক্ষ্যভেদে ব্যর্থ রাফায়েল। একটু পর বাঁ-দিক দিয়ে আক্রমণে ঢোকা নুরুল আবসার জিয়াকে একা পেয়েও বাইরে মেরে সুযোগ নষ্ট করেন। পাল্টা আক্রমণ থেকে ৩৭তম মিনিটে খালেকুজ্জামানের অসাধারণ গোলে সমতায় ফেরে শেখ রাসেল। বাঁ-দিকের ডি-বক্সের বাইরে থেকে এই ফরোয়ার্ডের বাঁ-পায়ের জোরালো শট চোখের পলকে মিতুল হোসেনকে বোকা বানিয়ে জালে জড়ায়। দ্বিতীয়ার্ধেও প্রতিপক্ষের রক্ষণে চাপ ধরে রাখে শেখ জামাল। ৫৫তম মিনিটে শেখ জামালের মোমোদুর ক্রসে রাফায়েল মাথা ছোঁয়াতে ব্যর্থ। পাঁচ মিনিট পর শেখ রাসেলের বিশ্বনাথ ঘোষের ক্রসে দাউদা সিসের সাইড ভলি অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট। অতিরিক্ত সময়ে রক্ষণের ভুলে গোল হজম করে শেখ রাসেল। ডি-বক্সের বাইরে থেকে মোমোদু হেড করে বল নামিয়ে দেয়ার পর সলোমন কিং সামনে থাকা ডিফেন্ডারদের বোকা বানিয়ে নিখুঁত শটে লক্ষ্যভেদ করেন। এ গোলেই পুরো ৩ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ে শেখ জামাল। এ নিয়ে তিন ম্যাচের তাদের সংগ্রহ নয়। সমান নয় পয়েন্ট নিয়ে যৌথভাবে শীর্ষে আছে চট্টগ্রাম আবাহনী।