শেরপুরের নকলা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

550

মোঃ মোশারফ হোসেন, নকলা প্রতিনিধিঃ শেরপুরের নকলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মাহবুব আলী চেীধুরী উরফে মনির চেীধুরীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে নকলা থানা পুলিশ। শুক্রবার সকাল সাড়েনয়টার দিকে উপজেলার পৌর শহরের ইশিবপুর এলাকার খাদ্যগুদাম মহল্লার নিজ বাসার শয়ন কক্ষ থেকে ওই লাশ উদ্ধার করা হয়। মনির চৌধুরী চরঅষ্টধর ইউনিয়নের চরভাবনা কামানীপাড়া গ্রামের জোনাব আলী চৌধুরীর ছেলে। তিনি জাতীয় সংসদের সাবেক হুইপ প্রয়াত জাহেদ আলী চৌধুরীর ছোট ভাই। নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান আব্দুল হালিম সিদ্দিকী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, মনির চৌধুরী তার ছোট স্ত্রীকে নিয়ে ওই বাসায় থাকতেন। মনির চৌধুরী বৃহস্পতিবার রাত একটার দিকে রাতের খাবার খেয়ে একাই নিজের শয়ন কক্ষে ঘুমাতে যান। তিনি প্রতিদিন সকালে চা নাস্তা করতে ঘুম থেকে উঠে পড়তেন। কিন্তু শুক্রবার সকালে তিনি ঘুম থেকে উঠতে দেড়ী করেন। দীর্ঘ্যক্ষণ কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে পরিবারের লোকজন ডাকাডাকি করেন, তাতেও ভিতর থেকে কোন শব্দ না পেয়ে দরজার তালা ভেঙ্গে ঘরে ডুকে মনির চৌধুরীর লাশ ঝুলতে দেখে থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে ওই লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

নকলা থানার ওসি খান আব্দুল হালিম সিদ্দিকী জানান, পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে শয়ন কক্ষের সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় মনির চৌধুরীর মরদেহ উদ্ধার করে। প্রাথমিক ভাবে ধারণা করে তিনি বলেন, গলায় উড়না প্যাঁচিয়ে সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলে আত্ম হত্যা করে থাকতে পারেন। লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করার পরে ময়না তদন্তের জন্য লাশ শেরপুর সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পরে এবিষয়ে নিশ্চিত করে বলা যাবে। নকলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজীব কুমার সরকার ও শেরপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ আমিনুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

মাহবুব আলী চেীধুরী ২০১৪ সালে নকলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি নকলা উপজেলা বিএনপির সভাপতি এবং একাধিকবার চরঅষ্টধর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন।