শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে এক কৃষক ও গূহবধু খুনের অভিযোগ

45

জিএইচ হান্নান: শেরপুর জেলার নালিতাবাড়ী উপজেলায় পৃথক ঘটনায় এক কৃষক ও গূহবধূ খুন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহত  কৃষকের নাম আবদুল খালেক (৪০)। সে উপজেলার উত্তর কাকরকান্দি গ্রামের মোকবুল হোসেনের ছেলে। নিহত গূহবধূও হলেন দুলালী বেগম (২০) সে একই উপজেলার বেলতৈল গ্রামের মৃত সুরুজ আলীর মেয়ে। ৩ আগস্ট বৃহস্পতিবার সকালে এ ব্যাপারে নালিতাবাড়ী থানায় পৃথক দুটি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে।

পুলিশ, নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, নালিতাবাড়ী উপজেলার উত্তর কাকরকান্দি গ্রামের মকবুল হোসেনের বড় ছেলে আবদুল মুন্নাফের (৪৫) হাতে ছোট ভাই আব্দুল খালেক (৪০) খুন হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ২ আগস্ট বুধবার বিকেলে বড় ভাই আব্দুল মুন্নাফের সাথে ছোট ভাই আব্দুল খালেকের একটি কাঠ গাছ কাটা নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। কথা কাটাকাটির জের ধরে এক পর্যায়ে বড় ভাই মুন্নাফ কোদাল দিয়ে ছোট ভাই খালেককে মাথায় সে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে পরিবারের অন্যান্য লোকজন খালেক কে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়, বুধবার রাতে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় খালেক  মারা যায়।

অপরদিকে, দুই বছর আগে নালিতাবাড়ী পৌর শহরের ছিটপাড়া মহল্লার নাজীর উদ্দিন এর ছেলে  হাবিল বাদশার (২২) সাথে উপজেলার রামচন্দ্রকুড়া ইউনিয়নের মৃত. সুরুজ আলীর মেয়ে দুলালী বেগমের (২০) বিয়ে হয়। স্বামী ও স্ত্রী কাজের জন্য ঢাকায় খিলখেত এলাকায় বসবাস করতেন। ঢাকায় স্বামী হাবিল রিকশা চালাতেন এবং স্ত্রী দুলালী একটি বাসায় ঝিয়ের কাজ করতেন। কিন্তু বিয়ের কিছু দিন  পর থেকে হাবিল বাদশা ব্যাটারি চালিত একটি অটো রিকশা কিনে দেওয়ার জন্য স্ত্রী দুলালী ও তার পরিবারের নিকট যৌতুক দাবি করে আসছিল। হাবিল কে ব্যাটারি চালিত অটো রিকশা কিনে না দেওয়ার বুধবার রাতে হাবিল ঢাকার ভাড়া বাসায় স্ত্রী দুলালীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে তার গ্রামের বাড়ীতে লাশ নিয়ে আসলে নিহতের আতœীয় স্বজন হাবিলকে আটক করে পুলিশ কে খবর  দেয়,পরে বেলতৈল এলাকা থেকে  স্বামী হাবিল বাদশাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ঢাকার খিলক্ষেত থানায় এ ব্যাপারে নিহতের মামা লাল মিয়া একটি হত্যা মামলা দায়ের প্রস্তুতি চলছে।

নালিতাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফসিহুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, লাশ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শেরপুর জেলা হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে। এব্যাপারে নালিতাবাড়ী থানায় একটি হত্যা মামলা ও একটি ইউডি মামলা হয়েছে, আটক ব্যক্তিকে শেরপুর আদালতে প্রেরণের প্রস্তুতি চলছে বলেও ওসি জানান।  একটি ঘটনা ঢাকায় হওয়ায় ঢাকার খিলখেত থানায়  হত্যা মামলা হবে বলে ওসি জানান।