শেরপুরের পল্লীতে অজ্ঞাতনামা দুর্বৃত্তরা মালামাল চুরি করে আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে মনোহারি দোকান

34

জিএইচ হান্নান ঃ শেরপুরের পল্লীতে অজ্ঞাতনামা দুর্বৃত্তরা মালামাল চুরির পর আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে এক মনিহারি দোকান। এতে দোকান মালিকের দশ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে।

গতকাল ২৩ জুলাই রোববার ভোর রাতে সদর উপজেলার ভাতশালা ইউনিয়নের সাপমারী গ্রামে মো. ইদ্রিস আলীর মনিহারি দোকানে এ ঘটনা ঘটে। ইদ্রিস ওই গ্রামের মৃত সেকান্দর আলীর ছেলে।
ক্ষতিগ্রস্ত দোকান মালিক, ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সদর উপজেলার সাপমারী গ্রামের ইদ্রিস আলী গত ২২ জুলাই শনিবার রাত নয়টার দিকে তাঁর বাড়িসংলগ্ন মনিহারি দোকানটি বন্ধ করে বাড়িতে যান। রাত ১২টার দিকে তিনি পুনরায় দোকানে এসে সবকিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে যান। কিন্তু আজ রোববার ভোর রাত তিনটার দিকে তাঁর (ইদ্রিস) মেয়ে তিন্নি বেগম ঘুম থেকে ওঠে দেখে, দোকানে আগুন জ্বলছে। এসময় ইদ্রিস দ্রুত দোকানে আসেন এবং দেখেন দোকানের পেছনের দরজাটি খোলা ও তালার আংটা ভাঙ্গা। দোকানে অধিকাংশ মালামাল নেই এবং আগুনে দোকানটি পুড়ছে। এসময় তাঁর (ইদ্রিস) ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। পরে শেরপুর জেলা সদর থেকে দমকল বাহিনীর কর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে ভোর রাত সাড়ে তিনটার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। সংবাদ পেয়ে সদর থানা পুলিশও ঘটনাস্থলে আসে। আজ রোববার দুপুরে সরেজমিনে সাপমারী গ্রামের ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, ইটের গাঁথুনি ও টিনের চাল দিয়ে তৈরি দোকানটির ভেতরের আসবাব ও মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। চালগুলো সম্পূর্ণ ভস্মিভূত হয়েছে। দোকানে কিছু বইপত্রের ধ্বংসাবশেষ রয়েছে। এসময় দোকান মালিক ইদ্রিস আলী বলেন, তাঁর মনিহারি দোকানে চাল, ডাল, তেল, লবণ, কেরোসিন, প্রসাধন সামগ্রী, শিক্ষা উপকরণসহ দুটি সাদাকালো ও রঙিন টেলিভিশন ছিল। অজ্ঞাতনামা দুর্বৃত্তরা দোকানের পেছনের দরজার তালার আংটা ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে দোকানের ক্যাশবাক্সে থাকা নগদ এক হাজার টাকাসহ মূল্যমান মালামাল চুরি করে নিয়ে যায় এবং পরে আগুন দিয়ে দোকানটি পুড়িয়ে দেয়। এতে তাঁর দশ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। তিনি আরো বলেন, চুরি করার পর দুর্বৃত্তরা ক্যাশবাক্সটি দোকানের উত্তরপার্শ্বের একটি ধান খেতে ফেলে রেখে যায়। তিনি এ ঘটনার জন্য দায়ী দুর্বৃত্তদের বিচার দাবি করেন। তিনি এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করবেন বলে জানান। শেরপুর সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. জুলহাস উদ্দিন রোববার বিকেলে সাংবাদিকদের বলেন, তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে এখন পর্যন্ত থানায় কেউ অভিযোগ দায়ের করেননি। অভিযোগ পেলে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।