শেরপুরে কঠোর লকডাউন অমান্য করার দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা

260

জিএইচ হান্নান : সারাদেশে চলমান লকডাউনের ৫ম দিন চলছে। ১ জুলাই বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া কঠোর লকডাউন আগামী ৭ জুলাই বুধবার মধ্যরাত এবং পুনরায় সরকার লকডাউন বর্ধিত করে ১৪ জুলাই মধ্যরাত পর্যন্ত চলবে বলে ঘোষণা দিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে শেরপুর জেলা সদরে কঠোর লকডাউন কার্যকর করতে জেলা প্রশাসনের নির্দেশনায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর নেতৃত্বে মাঠে কাজ করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অফিসার ও সেনা সদস্য, র‌্যাব ও পুলিশ। ৫ জুলাই সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১০টি মামলায় ১৯ হাজার ৩শত টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

জেলা প্রশাসক মো. মোমিনুর রশীদ এর নির্দেশনায় শেরপুর সদর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তনিমা আফ্রাদ এর নেতৃত্বে ময়মনসিংহ ১৯ পদাতিক ডিভিশনের ৪ বীর এর ক্যাপ্টেন তাহসীন ও সেনা সদস্যরা পৌরসভার খোয়াড়পাড়, বাটতলা, পুরাতন গরুহাটি, সদর উপজেলার বাজিতখিলা বাজারসহ বিভিন্নস্থানে কঠোর লকডাউনে বিধিনিষেধ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তনিমা আফ্রাদ ২০১৮ সালের সংক্রমণ আইন ২৫ (১) খ ধারা ভঙ্গ করে লকডাউনে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার দায়ে ৭টি মামলায় ১৭ হাজার ৪শত টাকা জরিমানা করেন।

অপরদিকে একই দিন সোমবার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান মাহমুদ, ডিএম সাদিক আল শাফিন ও আকলিমা আক্তার শেরপুর জেলা শহরের চলমান লকডাউন পরিস্থিতি প্রত্যক্ষ করেন। এসময় লকডাউন অমান্য করার দায়ে ৩ ব্যক্তিকে ১৮৬০ সালের দঃবিঃ ২৬৯ ধারায় দোষী সাব্যস্থ করে ১ হাজার ৯শত টাকা জরিমানা করেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে সদর উপজেলায় সবমিলিয়ে ১০টি মামলায় ১৯ হাজার ৩শত টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে দোষী ব্যক্তিরা তাদের জরিমানার টাকা পরিশোধ করেন।

এসময় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের পেশকার হেলাল উদ্দিন, দুলাল উদ্দিন, মো. নজরুল ইসলাম, সদর উপজেলা ভূমি অফিসের পেশকার ফারুক আহমেদ, সেনা সদস্য ও পুলিশ সদস্যসহ স্বেচ্ছাসেবীগণ উপস্থিত ছিলেন।

Advertisement
Print Friendly, PDF & Email
sadi