শেরপুরে ডিবি পুলিশের অভিযানে মাদকসহ গ্রেফতার-৭

379

জিএইচ হান্নান: শেরপুরে জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি পুলিশ ১২ নভেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে ১৩ নভেম্বর বুধবার ভোররাত পর্যন্ত সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে পৃথক পৃথক অভিযান চালিয়ে ইয়াবা ট্যাবলেট, হেরোইন ও গাঁজাসহ ৬ মাদক ব্যবসায়ী ও এক সহযোগীকে গ্রেফতার করেছে।

গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ী ও সহযোগী হলো- জামালপুর জেলার বকশীগঞ্জ উপজেলার শাহজালাল হোসেনের ছেলে খোরশেদ আলম (৫০), ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর উপজেলার মোফাজ্জল হোসেনের ছেলে সহযোগী মোঃ খোকন মিয়া (৪০), শেরপুর সদর উপজেলার লছমনপুর ইউনিয়নের সিরাজুল ইসলামের ছেলে মোঃ এংরাজ আলী (৪০), শেরপুর পৌরসভার গৌরীপুর মহল্লার মৃত. আক্কাস আলীর ছেলে মোঃ শুকুর আলী (২৫), বাজিতখিলা ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামের মৃত. মজিবুর রহমানের ছেলে মোঃ হাফিজুর রহমান (৩৫), চরশেরপুর ইউনিয়নের রামকৃষ্ণপুর গ্রামের মৃত. নেমতার ছেলে মোঃ ইয়াসিন মিয়া (৩১) ও একই গ্রামের মৃত. মোকাম্মেল হোসেনের ছেলে মোঃ নজরুল ইসলাম (৩৫)।

এক গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবির (ওসি) মোঃ মোখলেছুর রহমানের নির্দেশে উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাসিবুল হাসান ও এসআই ইউসুফ সঙ্গীয় ফোর্সসহ ১২ নভেম্বর মঙ্গলবার রাতে খোয়ারপাড় এলাকায় অভিযান চালায়। এসময় খোরশেদ আলম নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে। পরে তার কাছ থেকে ৫০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। এছাড়াও মাদক ব্যবসার কাজে সহযোগিতার দায়ে খোকন মিয়া নামে আরেক যুবককে আটক করে।

এদিকে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে সদর উপজেলার বাজিতখিলা সুলতানপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে হাফিজুর রহমানকে ৪ গ্রাম হেরোইন ও লছমনপুর নামাপাড়া এলাকা থেকে এংরাজ আলীকে ২০পিস ইয়াবা ট্যাবলেট এবং শুকুর আলীর কাছ থেকে ২০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট সহ হাতে নাতে আটক করে।

অপরদিকে ডিবির উপ-পরিদর্শক (এসআই) নজরুল ইসলাম, এএসআই মনোয়ার ও কাইয়ুম সঙ্গীয় ফোর্সসহ বামনেরচর মাইলামা ব্রীজ এলাকায় অভিযান চালিয়ে ইয়াসিন মিয়াকে ১০০ গ্রাম গাঁজা ও আরেক মাদক ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামকে ৫০ গ্রাম গাঁজাসহ আটক করে।

এব্যাপারে জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবির (ওসি) মোঃ মোখলেছুর রহমান মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ধৃত মাদক ব্যবসায়ী ও সহযোগীর নামে শেরপুর সদর থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে পৃথক পৃথক মামলা দায়ের করা হয়েছে। ১৩ নভেম্বর বুধবার দুপুরে ধৃতদের আদালতে সোপর্দ করেছে ডিবি পুলিশ।

Facebook Comments