শেরপুরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গৃহবধূকে কুপিয়ে আহত

187

জিএইচ হান্নান : শেরপুর জেলার সদর উপজেলার চরপক্ষীমারী ইউনিয়নের সাতপাকিয়া মধ্যপাড়া গ্রামে পূর্ব শত্রুতার জেরধরে একই গ্রামের নহেজ আলী ওরফে নগের ছেলে মজনু মিয়া (৩২) এর নেতৃত্বে তার বাবা অপরাপর ভাই ৮ জুন মঙ্গলবার বিকেলে দেশীয় অস্ত্রে শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মোছা. রুবিনা বেগম (২৮) নামে ৩ সন্তানের জননীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে। গৃহবধূ রুবিনা বেগম সদর উপজেলার সাতপাকিয়া মধ্যপাড়া গ্রামের মো. মনাহার আলীর স্ত্রী। পরে তাকে উদ্ধার করে শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, সদর উপজেলার সাতপাকিয়া মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত কাজিম উদ্দিনের ছেলে মো. মনাহার আলীর সাথে একই গ্রামের প্রতিবেশী মো. নহেজ আলীর ছেলে মো. মজনু মিয়া (৩২) তার বড় ভাই মো. রফিকুল ইসলাম (৩৪), ছোট ভাই মো. মাসুদ (৩০), বাবা নহেজ আলীর ওরফে নগে (৫৫), মৃত ইজ্জত আলীর ছেলে আঃ সাত্তার (৪৭) ও তার ছেলে মো. সাইফুল (২৫) সহ অপরাপরা পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মঙ্গলবার বিকেলে দেশীয় অস্ত্রে শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মনাহার আলীর বশত বাড়ীতে হামলা চালায়। এসময় মনাহার আলীর স্ত্রী মোছা. রুবিনা বেগম ওই সন্ত্রাসীদের বাধা দিতে গেলে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এসময় এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে ওই সন্ত্রাসীরা বীরদর্পে চলে যায়। পরে আহত মোছা. রুবিনা বেগমকে আত্মীয়-স্বজনরা উদ্ধার করে শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। এঘটনায় আহত রুবিনা বেগমের স্বামী মনাহার আলী বাদী হয়ে শেরপুর সদর থানায় ওই চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের নামে একটি মামলা দায়ের করেছে। যার মামলা নং- ২৯, তাং- ৯/৬/২০২১।

এব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন গৃহবধূ রুবিনা বেগমকে কুপিয়ে আহত এবং মামলা দায়েরের বিষয়টি সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।