শেরপুরে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো শারদীয় দুর্গোৎসব

65

জিএইচ হান্নান: সারাদেশের ন্যায় সনাতন ধমাবলম্বীদের পাঁচ দিনব্যাপী শারদীয় দুর্গোৎসব বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যে দিয়ে এবং অশ্রুজলে ৮ অক্টোবর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শেরপুর জেলা শহরের আড়াইআনী পুকুর ঘাটে বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে শেষ হলো শারদীয় দুর্গোৎসব।

প্রতিমা বির্সজনের আগে শেরপুর জেলা শহরের শ্রী শ্রী গোপাল জিউর নাট মন্দির প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শেরপুর জেলা শাখার সভাপতি এড. সুব্রত দে ভানু’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, শেরপুর জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এড. চন্দন কুমার পাল পিপি।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, পৌর মেয়র আলহাজ্ব গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া লিটন, নৌপরিবহন যুগ্ম সচিব পঙ্কজ কুমার পাল, সাবেক ভাতশালা ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ রফিকুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগ উপ-দপ্তর সম্পাদক বিনয় কুমার সাহা।

এছাড়াও অন্যান্যদের মধ্যে শহর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সহ-সভাপতি প্রকাশ দত্ত, শেরপুর ডিএফএ সভাপতি মানিক দত্ত, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সাধারণ সম্পাদক চন্দন সাহা, সহ-সভাপতি এড. শক্তিপদ পাল, এড. হরিদাস সাহা, নন্দ সাহা, শেরপুর সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন, জেলা গোয়েন্দা ডিবির (ওসি) মোঃ মোখলেছুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিসর্জনের পূর্বে জেলা শহরের বিভিন্ন পূজা মন্ডপের প্রতিমা গুলো আড়াইআনী পুকুর ঘাটে নিয়ে আসা হয়। বিজয়া দশমীর দিনে বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে র্মত্যছেড়ে কৈলাসে স্বামীগৃহে ফিরে যাবেন দুর্গতিনাশিনী দুর্গা। পেছনে ফেলে যাবেন ভক্তদের পাঁচদিনের আনন্দ-উল্লাস আর বিজয়ার অশ্রু। বিসর্জন কালে শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে হিন্দু সম্প্রদায়ের কিশোর-কিশোরী ও নারী-পুরুষসহ অন্যান্য সম্প্রদায়ের মানুষ প্রতিমা বিসর্জন উপভোগ করেন।

Facebook Comments