শেরপুরে মাদ্রাসা শিক্ষক কর্তৃক শিশু শিক্ষার্থীকে বলাৎকারের চেষ্টার অভিযোগে আটক

48

জিএইচ হান্নান: শেরপুর জেলা শহরের চাঁপাতলী মুহিউস সুন্নাহ মাদ্রাসার শিক্ষক উমর ফারুক কর্তৃক ওই মাদ্রাসার ২য় শ্রেণির এক শিশু শিক্ষার্থীকে বলাৎকারের চেষ্টা অভিযোগে ওই শিক্ষককে আটক করেছে শেরপুর সদর থানার পুলিশ। ১৬ অক্টোবর সোমবার বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে মাদ্রাসা সংলগ্ন মসজিদের পার্শ্বের একটি কক্ষে এ ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী জানায়, চাঁপাতলী মহল্লার বাসিন্দা সোহেল মিয়া তার শিশু ছেলে আবু সাঈদ কে গত কয়েক মাস পূর্বে ওই মাদ্রাসায় আরবীর ২য় শ্রেণিতে লেখাপড়া করার জন্য ভর্তি করে দেন। ওই মাদ্রাসার শিক্ষক পাশ্ববর্তী বারাকপাড়া মহল্লার জনৈক নাজিম উদ্দিনের ছেলে শিক্ষক উমর ফারুক প্রতিদিনের মত ওই দিন বিকেলে অন্যান্য শিক্ষার্থীদের ছুটি দেওয়ার পর আবু সাঈদকে কৌশলে তার থাকার কক্ষে নিয়ে বলাৎকারের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। এদিকে আবু সাঈদ বাসায় ফিরে তার মাকে এমন অপকর্মরের ঘটনা খুলে বললে ওই শিক্ষার্থীর মা বিষয়টি এলাকাবাসীকে জানায়। পরে এ ঘটনায় বিকেল ৫টার দিকে এলাকাবাসী বিক্ষুব্দ হয়ে উঠে এবং মাদ্রাসা শিক্ষক উমর ফারুককে ঘেরাও করে। এদিকে খবর পেয়ে সদর থানার এসআই হাবিবুর রহমান সঙ্গীয় ফোর্স সহ ঘটনাস্থল গিয়ে মাদ্রাসার শিক্ষক উমর ফারুক কে আটক করে এবং ভিকটিম আবু সাঈদকে উদ্ধার করে সদর থানায় নিয়ে যায়। পরে শিশুটিকে পুলিশ ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে। অপর দিকে শিক্ষক উমর ফারুক কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, শিশু আবু সাঈদের সাথে এমন আচরণ করা হয়নি তার পেটে ব্যাথা জন্য জারফুক এবং পেটে মালিশ দেওয়া হয়েছিল। এব্যাপারে ১৬ অক্টোবর রাতে শেরপুর সদর থানায় শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ে হয়েছে বলে সদর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম নিশ্চত করেছেন।