শেরপুরে ২৪ জুন পর্যন্ত সব ধরনের অনুষ্ঠান ও জনসমাগম নিষিদ্ধ

118

জাহিদুল খান সৌরভ : শেরপুর জেলার পৌরসভায় করোনাভাইরাস পরিস্থিতি উচ্চঝুঁকিপূর্ণ থাকায় ১১ জুন থেকে ২৪ জুন পর্যন্ত সকল ধরনের অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ১০ জুন বৃহস্পতিবার রাতে শেরপুর জেলা প্রশাসন কর্তৃক এক গণবিজ্ঞপ্তিতে এটি প্রকাশ করা হয়।

গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয় ১১ জুন ২০২১ তারিখ সকাল ৬.০০টা হতে ২৪ জুন ২০২১ তারিখ রাত ১২.০০টা পর্যন্ত শেরপুর পৌরসভায় সকল ধরনের রাজনৈতিক, সামাজিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

গণবিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়-

১। কোডিড-১৯ আক্রান্ত ব্যক্তির বাসস্থান লকভাউনের আওতাভুক্ত থাকবে। উক্ত সময়কালীন আক্রান্ত ব্যক্তি ও পরিবারের সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সার্বক্ষণিক গৃহে অবস্থান করতে হবে। কোনে াক্রমেই বাড়ির বাইরে অবস্থান করা যাবে না।

২। জনসমাগম হয় এ ধরণের সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান, বিবাহ্ অনুষ্ঠান, জন্মদিন, পিকনিক ও পর্যটন স্পটসমূহ বন্ধ থাকবে।

৩। সকাল ৭.০০টা হতে বিকাল ৫.০০টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকানপাট, শপিংমল খোলা রাখা যাবে। তবে স্বাস্থ্যবিধি পালনে ব্যর্থ হলে সংশ্লিষ্ট দোকানপাট ও শপিংমল বন্ধ করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ঔষধের দোকানসমূহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখা যাবে।

৪। জরুরি পরিসেবা (যেমন বিদ্যুৎ , গ্যাস, কৃষিপণ্য পরিবহন, পশুখাদ্য এবং জরুরি প্রয়োজন ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ইত্যাদি) ব্যতিত কেউ সন্ধ্যা ৭টা হতে পরদন সকাল ৭ পর্যন্ত বাড়ির বাইরে অবস্থান করতে পারবে না।

৫। হোটেল, রেস্তোরা, খাবারের দোকানসমূহ শুধু পার্সেল, টেকওয়ে, অনলাইন অর্ডার বা হোম ডেলিভারি সেবা প্রদান করতে পারবে। কোনো অবস্থাতেই উক্ত স্থানসমূহে বসে খাবার গ্রহণ করা যাবে না।

৬। বাস, মাইক্রোবাস ইত্যাদি গণপরিবহনসমূহ নির্ধারিত আসনসংখ্যার অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচল করতে পারবে। তবে যাত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।

৭। সিএনজি, অটোরিক্সা, ইঞ্জিনচালিত রিকশা, অন্যান্য রিকশাসমূহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুধু ২ জন যাত্রী বহন করতে পারবে। সিএনজি ও অটোরিক্সাসমূহ কোনোক্রমেই সামনের সিটে যাত্রী বহন করতে পারবে না।

৮। এছাড়াও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগসহ সরকার কর্তৃক জারিকৃত অন্যান্য নির্দেশনাসমূহ এ বিধিনিষেধের অন্তর্ভুক্ত গণ্য হবে।

এব্যাপারে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব জানান, সম্প্রতি কোভিড-১৯ পরিস্থিতি শেরপুরে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। চলতি মাসে ১০ দিনে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০। তাই আমাদেরকে বাধ্য হয়ে কঠোর অবস্থায় যেতে হচ্ছে। জুনের ১১ তারিখ থেকে আগামী ২৪ তারিখ পর্যন্ত সব ধরনের আচার অনুষ্ঠান ও জনসমাগম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। উক্ত নির্দেশনা অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।