শ্রীবরদীতে প্রতিবেশীর ধর্ষণে কিশোরী অন্ত:স্বত্ত্বা ॥ থানায় মামলা

584

তাসলিম কবির বাবু : শেরপুর জেলার শ্রীবরদী উপজেলার সদর ইউনিয়নের পুরান শ্রীবরদী গ্রামের প্রতিবেশী আ: হাকিম ওরফে ভূসি (৫০) এর ধর্ষণের ফলে তৃতীয় শ্রেণির এক শিক্ষার্থী (১২) অন্ত:স্বত্ত্বা হওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

ধর্ষক আ: হাকিম ওরফে ভূসি শ্রীবরদী উপজেলার পুরান শ্রীবরদী গ্রামের মৃত সাদু মিয়ার ছেলে।

অন্ত:স্বত্ত্বা ওই কিশোরী একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী। এঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যর সৃষ্টি হয়েছে। এঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর থেকেই অভিযুক্ত আ: হাকিম ওরফে ভূসি পলাতক রয়েছে। পরে অন্ত:স্বত্ত্বা কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে শ্রীবরদী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, আ: হাকিম ওরফে ভূসি ও ধর্ষণের শিকার শিক্ষার্থীর বাড়ি পাশাপাশি। ভূসি সম্পর্কে অন্ত:স্বত্ত্বা শিক্ষার্থীর জেঠা। বিগত মার্চ মাসে আ: হাকিম ওরফে ভূসি কৌশলে কিশোরীকে তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে কোমল পানীয়র সঙ্গে ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে তা পান করিয়ে ওই কিশোরীকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে ওই কিশোরী অন্ত:স্বত্ত্বা হয়ে পড়ে। পরবর্তীতে শারীরিক অবস্থার পরিবর্তন দেখে তার মা গত ৭ সেপ্টেম্বর ওই কিশোরীকে জিজ্ঞাসা করলে বিষয়টি জানাজানি হয়। পরে ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য আ: হাকিম ওরফে ভূসি ও তার ভাই ফারুক মিয়া, আব্বাস মিয়াসহ স্থানীয় প্রভাবশালীরা ওই কিশোরীর পিতা-মাতাকে চাপ সৃষ্টি করে।

এব্যাপারে শ্রীবরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব কুমার বিশ্বাস বলেন, এ ঘটনায় অন্ত:স্বত্ত্বা কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে আ: হাকিম ওরফে ভূসিকে প্রধান ও দুইজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ৪-৫ জনকে আসামী দিয়ে শ্রীবরদী থানায় মামলা দায়ের করেছেন। আসামীদেরকে গ্রেফতারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ওই কিশোরীকে ডাক্তারী পরিক্ষার জন্য শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

Advertisement
Print Friendly, PDF & Email
sadi