স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণ, ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার

86

লাখ টাকা চাঁদার দাবিতে স্বামীকে আটকে রেখে তাঁর নববধূকে ধর্ষণ করা হয়েছে। এই অভিযোগে করা মামলায় বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন হোসেন মোল্লাকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ।

আজ রোববার বরিশাল নগরীর কালীবাড়ী রোড থেকে সুমন হোসেন মোল্লাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে বিকেলে গৃহবধূর স্বামী ছাত্রলীগ নেতা সুমন ও তাঁর সহযোগী মামুনসহ অজ্ঞাতনামা আরো দুজনকে আসামি করে মামলা করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা ডিবির উপপরিদর্শক (এসআই) মো. রুহুল আমিন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নগরীর কালিবাড়ী এলাকায় অভিযান চালিয়ে বানারীপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন হোসেন মোল্লাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মামলার বরাত দিয়ে এসআই জানান, মামলার বাদী চট্টগ্রামে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালান। ১০ মাস আগে বিয়ে করা স্ত্রীকে নিয়ে ১৫ দিন আগে তিনি বানারীপাড়ায় গ্রামের বাড়িতে আসেন। কিন্তু এটি তাঁর দ্বিতীয় বিয়ে হওয়ায় পরিবার তাদের মেনে নেয়নি। তখন বধূকে নিয়ে উপজেলার একটি গ্রামে নানার বাড়িতে ওঠেন চালক। খবর পেয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন দলবল নিয়ে সিএনজি চালকের কাছে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। এ নিয়ে বাগবিতণ্ডার একপর্যায়ে সুমন সিএনজিচালক ও তাঁর  স্ত্রীকে নিয়ে গ্রামের ক্লাবের একটি কক্ষে আটকে রাখেন। চাঁদার টাকা না দেওয়ায় স্ত্রীকে রাতভর ধর্ষণ করেন সুমন। এ কাজে সুমনকে সহায়তা করেন মামুনসহ তিন সহযোগী। সকালে সিএনজি চালক স্বামীর চিৎকারে বধূকে ফেলে রেখে যান সুমনসহ সহযোগীরা।

বানারীপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন জানান, এ ঘটনায় সুমন ও মামুনসহ অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মেডিকেলে পাঠানা হয়েছে।